৩০ নভেম্বর, ২০১৪

হাগনকুঠির দুআ

লিখেছেন শান্তনু আদিব

# বিসমিল্লাহসহ পায়খানায় প্রবেশের দুআটি এই:
بِسْمِ اللهِ اَللهُمَّ إِنّيْ أَعًوْذُ بِكَ مِنَ الْخُبْثِ وَالْخَبَائِثِ.
উচ্চারণ:
বিসমিল্লাহি আল্লাহুম্মা ইন্নি আউযুবিকা মিনাল খুবসী ওয়াল খাবায়িস।
অর্থ:
হে আল্লাহ! দুষ্ট পুরুষ জিন এবং দুষ্ট মহিলা জিনদের অত্যাচার থেকে তোমার পানাহ চাই।

# আর পায়খানা থেকে বের হওয়ার সময় নিম্নোক্ত দুআ পড়বে:
غُفْرَانَكَ الْحَمْدُ لِلهِ الَّذِيْ اَذْهَبَ عَنِّيْ الْاَذَى وَعَافَانِيْ.
উচ্চারণ:
গুফরানাকা আল হামদু লিল্লাহিল্লাযি আযহাবা আননিল আযা ওয়া আফানী।
অর্থ: 
তোমার নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করছি। সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর জন্য যিনি কষ্টদায়ক বস্তুসমূহ আমার থেকে দূর করে দিয়েছেন এবং আমাকে শান্তি দান করেছেন।
এখন প্রশ্ন হইল, হাগা-মুতার সাথে কোনোভাবে কি এই দোয়া দুইটা রিলেট করা যায়, বিশেষত প্রথম দোয়া? মানতেছি, কারো হাগা চরম কষা হইলে তার সাথে দ্বিতীয় দোয়া কিছু রিলেট করা সম্ভব। কিন্তু যাদের হাগা আমার মত সিল্কি স্মুথ, তারা কেমনে দ্বিতীয় দোয়ার সাথে নিজেদের রিলেট করবে?

এর বদলে হাগার দোয়া কি এ রকম হলে ভালো হত না যে,
ইয়া আল্লা, আমি তোমার নাম নিয়া হাগতে বসতেছি, আমার হাগা যাতে কষা বা পাতলা না হয়, সেই তৌফিক দান কর।
এবং হাইগা বের হবার সময় পড়া উচিত, 
ইয়া আল্লা, তোমার নাম নিয়া হাগছি বইলা হাগা আমার সিল্কি স্মুথ হইছে, সেইজন্য তোমার দরবারে হাজার শুকরিয়া।
থিংক অ্যাবাউট ইট ইউ মুসলিমজ...

দুষ্টু যাজিকারা - ১৯



বোনাস ছবি: ৩.২ মেগাবাইটের অ্যাডাল্ট দুষ্টুমি। অতএব বাচ্চালোগ, খিয়াল কৈরা!

দাস-রাফুল মাখলুকাত

লিখেছেন ক্যাটম্যান

পৃথিবীতে, সম্ভবত, মানুষই একমাত্র প্রাণী, যে শাসিত হওয়ার উদ্দেশ্যে নিজের শাসক-প্রভু নিজে নির্বাচন করে। প্রাণীসমাজের অন্য কোনো গোত্র বা প্রজাতির মাঝে এমন আত্মনিগ্রহ লক্ষ্য করা যায় না। সাধারণ ও অসাধারণ উভয় দৃষ্টিতেই লক্ষণীয় যে, মানুষ ব্যতিরেকে প্রাণীসমাজের সব প্রজাতি নিজেদের স্বাধীনতার ব্যপারে পূর্ণ সচেতন। 

কিন্তু তথাকথিত 'আশরাফুল মাখলুকাত' বা সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ নিজেকে পশু-পাখির তুলনায় অধিক স্বাধীনচেতা বা সম-স্বাধীনচেতা সত্তা প্রমাণ করতে পারেনি। বরং মানব ইতিহাস এই সাক্ষ্য দেয় যে, প্রভুদের রক্ষার জন্য পৃথিবীর বহু দাস নিজেদের জীবন অকাতরে বিলিয়ে দিয়েছে। 

অনেকে দাসত্ব অর্জনকে নিজেদের জীবনের একমাত্র মোক্ষ জ্ঞান করে থাকে। সেক্ষেত্রে ধর্মীয় দাসত্ব অন্যতম। ধর্ম স্বাধীন মানুষের অস্তিত্ব অস্বীকার করে। কারণ ধর্মের প্রভুগণ পরজীবিতার স্বার্থে অন্ধ। প্রভুগণের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে হলে প্রভুর অধীনে প্রচুর দাস দরকার। দাস বিহীন প্রভু সব যুগেই বড্ড বেমানান। তাই বিভিন্ন প্রকার ভীতি প্রদর্শনের মাধ্যমে ধর্মের পরজীবী প্রভুগণ নিজেদের দাসের সংখ্যা বৃদ্ধিতে প্রতিনিয়ত সংগ্রামরত। 

যারা দাসসুলভ ব্যাধিগ্রস্ত চেতনার অধিকারী, তারা ধর্মের পরজীবী প্রভুগণের এমন নির্লজ্জ প্রয়াসে গৌরব বোধ করে। অনেকে কল্পিত সত্তার দাস হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করতে নামের শুরু বা শেষে দাস বা দাসী ইত্যাদি উপাধি যোগ করে থাকে, যেমন আব্দুল্লাহ (আল্লাহর দাস), আব্দুল খালেক (স্রষ্টার দাস), আব্দুল মালেক (প্রভুর দাস), দেবদাস, দেবদাসী, হরিদাস ইত্যাদি ইত্যাদি। ভৃত্যসুলভ মানসিকতার কী বাহার, ওপরোক্ত নামসমূহ বিশ্লেষণ করলেই তা বোঝা যায়। 

অথচ পশু-পাখিদের সমাজে এমন ভৃত্যসুলভ আচরণ বা দাসোচিত উন্মাদনা লক্ষ্য করা যায় না। পশু-পাখিদের সমাজ এতটাই স্বশিক্ষিত যে, স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে দাস হওয়ার তাড়না কখনই তারা অনুভব করে না। কিন্তু আশরাফুল মাখলুকাত অর্থাৎ মানুষ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে দাস হওয়ার তাড়না তীব্রভাবে অনুভব করে থাকে। যে কারণে মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব তকমায় ভূষিত হয়েছে। 

মানুষের প্রধানতম ভূষণ হলো বহুমাত্রিক দাসত্ব; যে ভূষণ নিকৃষ্ট জীব পশু-পাখিদের নেই। তাই প্রতিক্রিয়াশীল সমাজে দাসত্বের তাড়নাবিহীন প্রগতিশীল ও স্বাধীনচেতা মানুষ পশু-পাখিসম অধম ও হীন বিবেচিত হয়ে থাকে। পশু-পাখিদের সাথে মানুষের পার্থক্য যতটা না জ্ঞানে; তার চেয়েও অধিক পার্থক্য দাসত্বে। তাই পশু-পাখিরা শাসিত হওয়ার উদ্দেশ্যে কখনও নিজেদের শাসক-প্রভু নির্বাচন না করলেও অধম আশরাফুল মাখলুকাত মানুষ তা করে থাকে।

প্রচারে বিঘ্ন অথবা ধর্মপ্রচারক ও ধর্মপচারকেরা – ৪১

ক্যাম্পাসে যিশুর বাণী প্রচার করতে আসা ধর্মপ্রচারকদের কতো বিচিত্র উপায়েই না উত্যক্ত করে তরুণ আর যুবকেরা! দুটো ভিডিওই মজাদার।

ভিডিও লিংক: http://youtu.be/xstwffL1ylc

ভিডিও লিংক: http://youtu.be/qwyZ0ji1GRU

২৯ নভেম্বর, ২০১৪

গোমূত্রপানপ্রথাপুরাণ

লিখেছেন সেক্যুলার ফ্রাইডে

প্রাচীন ভারতের পশুপালক সমাজে নারায়ণসম অতিথিকে আপ্যায়ন করা হত কচি বাছুরের মাংস দিয়ে; সে কারণেই অতিথিকে বলা হত গোঘ্ন। ঋগ্বেদের প্রথম মণ্ডলের ১৬৪ সূক্তের ৪৩ নং শ্লোকে পাই বৃষ মাংস খাওয়ার কথা, পঞ্চম মণ্ডলের ২৯ নং সূক্তের ৮ নং শ্লোকে পাই খাদ্য হিসেবে মহিষ মাংসের উল্লেখ। বিভিন্ন স্মৃতিশাস্ত্রেও গো-মাংস ভক্ষণের সমর্থনসুচক শ্লোক পাওয়া যায়।

সমাজ বিকাশের ধারায় প্রাচীন ভারতের কৃষিজীবী জনগোষ্ঠীর জন্যে গো-সম্পদ ধীরে ধীরে হয়ে ওঠে অপরিহার্য, সেই সাথে যোগ হয় ধর্মীয় সংঘাত, গোহত্যা বন্ধে সম্রাট অশোকের সক্রিয় আদেশ এবং ব্রাহ্মণ্যবাদীদের অভ্যাসের পরিবর্তন। হিন্দুধর্মের মৌলিক স্তম্ভ হয়ে ওঠে গরু, সংস্কৃত ভাষা ও গীতা। প্রাণীটিকে মহিমান্বিত করতে এক দিকে মাতৃজ্ঞানে যেমন একে উপস্থাপন করা হয় দেবতার বাহন-সম শ্রেষ্ঠত্বে, আর অন্যদিকে চিত্রিত করা হয় সর্ব-অভীষ্টদায়িনী গাভী কামধেনুর রুপকথায়।

এমনকি ভজন-পূজন-সাধন-আরাধনাতেও উপাচারের ছলে দেখি পবিত্র জ্ঞানে পঞ্চগব্যের (দই, দুধ,ঘি, গোমুত্র, গোবর) বহুল ব্যবহার।

সামন্ততান্ত্রিক ভারতে গরুর মঙ্গল কামনায় প্রচলিত ছিল গোরোখ নামের গরুর পূজার আচার; ব্রাহ্মণকে গোদান করা হয়ে উঠেছিল স্বর্গপ্রাপ্তিসম পবিত্রতম কর্ম; এমনকি কালক্রমে এ ধারণাও ছড়িয়ে পড়ে যে, গো স্পর্শে রয়েছে পূণ্যকর্ম, গো সেবায় আছে বিত্তলাভ, গরুর ভিন্ন ভিন্ন অংশে অবস্থান করেন দেবতারা; মাথায় ব্রহ্মা, কাঁধে শিব, পিঠে নারায়ণ এবং আর চরণে বেদ। এমনকি গাভীর লোমে অবস্থান করেন অন্যান্য সকল দেবতা।

ইতিহাসের পটপরিবর্তন, পুঁজির বিকাশের ধারা এবং প্রযুক্তির উৎকর্ষতার সাথে সাথে আধুনিক যুগে কৃষিকাজ আর গো-সম্পদের ওপর নির্ভরশীল না থাকলেও হিন্দুদের পশ্চাৎপদ মানসিকতায় গরু আজও পবিত্র জ্ঞানেই স্থাপিত। ধর্মব্যবসায়ী হিন্দু মৌলবাদীরা এরই সুযোগ ধরে শুধুমাত্র গোমাংস খাওয়াকে ব্রাত্যজ্ঞান করেনি, বরং ফেঁদে বসেছে গো-সংক্রান্ত বিভিন্ন আচার, এমনকি সম্প্রতি শুরু করেছে গোমূত্রকে পানীয় হিসেবে বেচবার বিকট ও বিশাল এক আন্তর্জাতিক ব্যবসা।


অত্যন্ত অবাক করা বিষয় হচ্ছে উৎকট এই পানীয়কে পবিত্র জ্ঞানে হিন্দুরা দল বেঁধে কিনেও নিচ্ছে, আর সেই সাথে ফুলে ফেঁপে উঠছে ধর্মব্যবসায়ীদের কোষাগার। ধর্মান্ধ হিন্দুরা এমনকি এর পক্ষে মেতে উঠছে বিতর্কে, চেষ্টা করছে এই গোমূত্রকে স্বাস্থ্যকর হিসেবে উপস্থাপনের। তাদের মধ্যে রয়েছেন চিকিৎসক ও পুষ্টিবিজ্ঞানীরাও!



একবিংশ শতকের দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে, আধুনিক এই বিশ্বে হাস্যকর এই হীন অপচেষ্টাকে শুধুমাত্র শ্লেষভরে তাচ্ছিল্য করবার উপায় নেই; কারণ অদ্ভুত ও অস্বাস্থ্যকর এই অভ্যাস শুধুমাত্র ব্যক্তির শারীরিক ও মানসিক ক্ষতির কারণই নয়, সেই সাথে মৌলবাদী অর্থনীতির নিয়ামক শক্তিও।

আমার বোরখা-ফেটিশ – ১২৮



মুসলমানেরা আলাদা

লিখেছেন জুলিয়াস সিজার

ইন্দোনশিয়ায় অনুষ্ঠিত হয়েছে "বিশ্ব মুসলিম সুন্দরী প্রতিযোগিতা।"

পৃথিবীতে বিশ্ব হিন্দু সুন্দরী প্রতিযোগিতা নেই, বিশ্ব খ্রিষ্টান সুন্দরী প্রতিযোগিতা নেই, বিশ্ব বৌদ্ধ সুন্দরী প্রতিযোগিতা নেই, বিশ্ব ইহুদি সুন্দরী প্রতিযোগিতা নেই। 

মুসলমানেরা আলাদা সবার থেকে।

ইসলামিক দেশগুলোর সংগঠন ‪‎ওআইসি‬ আছে। পৃথিবীতে খ্রিষ্টানদের দেশ নিয়ে কোনো সংগঠন নেই, বৌদ্ধদের দেশ নিয়ে সংগঠন নেই, হিন্দুদের দেশ নিয়ে সংগঠন নেই। ধর্মভিত্তিক সংগঠন আছে শুধু মুসলমান দেশগুলোর। 

মুসলমানেরা আলাদা।

আমেরিকা, ফ্রান্স, জার্মানির লোকেরা নিজেদের খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীদের দেশ হিসেবে পরিচয় দেবে না। তাদের জাতীয়তা নিয়ে পরিচয় দেবে। আর মুসলমানের বড় পরিচয় তার ধর্ম। দেশটেশ পরের ব্যাপার।

পৃথিবীতে কোনো হিন্দু বিশ্ব নেই, খ্রিষ্টান বিশ্ব নেই, বৌদ্ধ বিশ্ব নেই। একটা মুসলিম বিশ্ব আছে। এই কল্পিত মুসলিম বিশ্ব মুসলমানদের স্বপ্নের বিশ্ব। যেমন: "ফিলিস্তিনে হামলা। মুসলিম বিশ্ব চুপ কেন?" - এই কথা মুসলমানেরাই বলে। 

এখানেও মুসলমানেরা আলাদা।

প্রার্থনা করবেন? সেখানেও বিশ্বের সকল মুসলিম উম্মাহর জন্য প্রার্থনা করা হবে। আর বিধর্মীদের ওপর যত অভিশাপ দেওয়া যায়, সব দেওয়া হবে। হিন্দুদের প্রার্থনায় হিন্দুদের জন্য শান্তি কামনা করে বিধর্মীদের জন্য ধ্বংস কামনা করা হয় না। বৌদ্ধদের প্রার্থনায় "জগতের সকল প্রাণী সুখ লাভ করুক" এমন প্রার্থনা করা হয়। বিধর্মীদের গালি দেওয়া হয় না। আমি খ্রিষ্টানদের প্রার্থনা দেখিনি। তাই জানি না।

শুধু মুসলমানেরা আলাদা।

দুনিয়াব্যাপী হিন্দু ধর্ম কায়েমের কোনো জঙ্গি গ্রুপ নেই। খ্রিষ্টান ধর্ম কায়েমের কোনো জঙ্গি গ্রুপ নেই। বৌদ্ধ ধর্ম কায়েমের কোনো জঙ্গি গ্রুপ নেই। মুসলমানদের হাজারো গ্রুপ আছে। 

তারা আলাদা।

চিত্রপঞ্চক - ১০০


মহিলা যিশু, হিজাবি ও নান 

ইউক্রেনের যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চলে 

উগ্র খ্রিষ্টানদের GOD HATES FAGS স্লোগানের ধাঁচে 


২৮ নভেম্বর, ২০১৪

সূরা অন্ধবিশ্বাসী

অবতীর্ণ হয়েছে বুদ্ধ মোহাম্মদ যীশু কৃষ্ণ-এর ওপর

যে সকল প্রশংসা জোর করিয়া আদায় করিয়া লইতে চায়, সে প্রশংসারই অযোগ্য।

১. ভাবিয়া দেখ ঐ বিশ্বাসীদের কথা

২. যাহারা তোমাদেরও গায়ের জোরে বিশ্বাসী বানাইতে চায় এক অন্ধবিশ্বাসে।

৩. কিন্তু তাহারা ভাবিয়া দেখে না যে, তাহাদের বিশ্বাসেরই কোনো ভিত্তি-প্রমাণ নাই।

৪. যাহারা কথা প্যাঁচাইয়া যায় আধার হইতে আলোক অবধি।

৫. আমি কি তোমাদের বলিনি যে, তাহারা তোমাদের সময় নষ্ট ব্যতীত কিছুই করিবে না;

৬. অথচ তোমরা তাহাদের দিনের পর দিন বুঝাইতে চাও কোন আশায়? যাহাদের জ্ঞান আছে, তাহারা অল্পতেই বুঝিয়া যায়, আর বাকিরা ত্যানা প্যাঁচাইতে প্যাঁচাইতে ত্যানা ছিঁড়িয়া ফেলে।

৭. যদিও তাহারা অন্ধবিশ্বাস করিবে আদি যুগের কিছু ভ্রান্ত রূপকথায়;

৮. যে অন্ধবিশ্বাস শিশুকাল হইতেই তাহাদের মস্তিস্কে ঢুকাইয়াছে পরিবার ও সমাজ।

৯. সেই অন্ধবিশ্বাস থেকে মুক্ত হইতে মস্তিস্কে যে নিউরন কোষের প্রয়োজন, তাহা খুলিয়া ভাজিয়া খাইয়া ফেলিয়াছে টুপি ও পৈতাওয়ালারা।

১০. এবং সেই খালি করোটিতে তাহারা ঢুকাইয়াছে অনন্তকালের লোভ ও ভয়।

১১. তাহাদের জন্য যখন ধর্মগ্রন্থের রেফারেন্সের সহিত যুক্তিযুক্ত বক্তব্য পেশ করা হয়, তখন তাহারা তাচ্ছিল্যের সহিত অবিশ্বাসীদের বলে, তোমাদের মত মুর্খদের সহিত আমরা কী আলোচনা করিবো? তোমরা তো ধর্ম সম্পর্কে কিছুই জানো না।

১২. পক্ষান্তরে তাহারাই প্রকৃত মুর্খ এবং ধর্ম ও ধর্মগ্রন্থ সম্পর্কে কোনো সঠিক জ্ঞানই তাহারা রাখে না।

১৩. তাহারা নিজেরাই ধর্ম সম্পর্কে জ্ঞান আহরণ করে তাহাদের ধর্মীয় গুরুদের বয়ান শুনিয়া ও টিভিতে দেখিয়া।

১৪. ধর্মগুরুরা তাহাদের শিশুকাল হইতে যাহাই বুঝাইয়াছে, উহারাও তাহাতেই মাথা ঝাঁকাইয়া বলিয়াছে, জ্বী হুজুর, যদিও সেই কথা যতই কাল্পনিক রূপকথা হউক না কেন।

১৫. তাহারা নিজেরাও কখনো ধর্ম নিয়া প্রশ্ন করে নাই কাল্পনিক নরকে যাইবার ভয়ে, এবং কেহ প্রশ্ন করিলেও উহারা তাহা সহ্য করিতে পারে না অন্ধবিশ্বাস হারাইবার ভয়ে।

১৬. তাহারা জ্ঞান-বিজ্ঞানবিমুখ এক অদ্ভুত প্রজাতির অন্ধ-বিশ্বাসী।

১৭. এই সেই সূরা, যাহাতে অবিশ্বাস করিবার জন্য কোনোই সন্দেহ নেই অবিশ্বাসীদের জন্য।

১৮. তবুও বিশ্বাসীরা এই সূরাতে আসিয়া প্রমাণ করিতে চেষ্টা করিবে, ইহাতে ভুল আছে।

১৮. যদিও এই সূরা তাহাদের ধর্মগ্রন্থের চ্যালেঞ্জ ভাঙ্গিতে সক্ষম।

১৯. কিন্তু তাহারা যতই এই সূরা ভুল প্রমান করিতে চেষ্টা করিবে, ততই এই সূরা তাহার সত্যতা প্রকাশ করিবে এবং নিজের বিস্তার ঘটাইবে।

২০. যদিও তাহারা বলিবে, এই সূরা তাহাদের ধর্মগ্রন্থের ন্যায় হয় নাই।

২১. যাহারা উক্ত কথা বলিবে, আমি তাহাদের চ্যালেঞ্জ করিবো - এই সূরার অনুরূপ একটি সূরা রচনা করিয়া আনো সমস্ত বিশ্বের বিশ্বাসীদের সাথে করিয়া।

২২. যদিও তোমরা তাহা পারিবে না অযথা বাক্য ব্যবহার ছাড়া, কারণ অন্ধবিশ্বাসীরা বিশ্বাস করে, ঈশ্বরই একমাত্র সূরা রচিতে সক্ষম।

২৩. কিন্তু তোমরা কি দেখিতেছ না এই সূরা কাহার রচনা?

২৪. ইহাতেই কি প্রমাণ হইবে আমি ঈশ্বর?

২৫. যদিও বিশ্বাসীদের কথা অনুযায়ী আমার ঈশ্বর হইবার কথা, তবুও আমি ঈশ্বর নহি, আমাদের কোনো ঈশ্বর-আল্লাহ-ভগবান নামক প্রভু নাই।

২৬. গবাদী পশুদের প্রভুর দরকার হইলেও মানুষের কোনো প্রভুর দরকার নাই। আমরা মানুষ, মনুষ্যত্বই আমাদের প্রভু।

হা-হা-হাদিস – ১১৫

অনুবাদ ও ফটোমাস্তানি: নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক


মন্দিল-খুশি-করা ইলাস্ট্রেশনসহ বাংলায় অনূদিত আরও অসংখ্য মজাদার হাদিসের সংকলনটি যাঁরা এখনও দেখেননি, তাঁরা কতোটা মিস করেছেন, তা ডাউনলোড করে নিয়ে নির্ধারণ করুন।

ডাউনলোড লিংক ১
https://docs.google.com/file/d/0B1lqaonhgir4N3ZCcWk1WTdQdkk/edit?usp=sharing

ডাউনলোড লিংক ২
http://www.nowdownload.ch/dl/da441c35c51a0

ফরম্যাট: পিডিএফ
সাইজ: ১০.৭৪ মেগাবাইট

নিয়ামত ও মুসিবত - আল্লাহপাকের লীলা

লিখেছেন বাংলার উসমান মুয়াজ্জিন মোহাম্মদ ইসলাম

আউজুবিল্লাহ হিমিনাশ শায়তুয়ানির রাজিম। বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম। নাহমাদু ওয়া রাসূলিহি ক্বারিম আম্মা বাদ।

উফস্থিত মুসল্লি ক্বেরাম, আজিয়া আমরা দু'টি বিষয় লিয়ে কতা বোইলব। একটি হোসসে "সবর" এবং অফরটি "শুকরিয়া আদায়"।

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন মানশকে মূলত এই দুইবাবে ফরিক্ষা করেন।

তিনি কাউকে কুটি কুটি টেকার মালিক করি দেওনের মধ্য দিয়া খিয়াল করেন, লোকটা শুকরিয়া আদাই করে কি না। এবং সে জাকাত ফ্রদান করে কি না! নাকি নামে মাত্র জাকাত দিয়া দানাই ফানাই কোইরগা সারি ফেলে!

আল্লাহ তাকে এমন নিয়ামত দিয়া ফরিক্ষা করেন। আল্লাহ যুদি দেকেন যে, সে সিদা সিদা সোইলতেসে না, মুয়াড়জিনদের ঈদে সাঁন্দে লুঙ্গি ফাইঞ্জাবী দেতেসে না, তখন আল্লাহপাক অগ্নিমূর্তি ধারন করি তাকে শাস্তি দেন।

আল্লাহপাক কিবাবে শাস্তি দেন, তা আমরা জানি না। তিনি হয়ত এই কুটি কুটি টেকার মালিকের কাস থিকা সম্পূর্ন টেকা কাড়ি নিয়া নিয়ামাত ছিনিয়ে নেয়ার মাইদ্যমে শাস্তি আরোফ করেন।

হয়ত তিনি তা করেন না। তিনি হয়ত কেবল সামাইন্য কয়েক লক্ষ টেকা শেয়ার বেবসায় লস করাইয়া এই নিমকহারামকে শাস্তি দেন।

আবার হয়ত আল্লাহপাক তাও করেন না। তিনি পুরা টেকা অ নেন না,অথবা অল্প টাকা লস না করাইয়া নেয়ামত অ কমান না। হতে ফারে তিনি তাঁর এই হারামী বান্দাকে ফুরোফুরি নিয়ামতের ভিতর রাখেন। কিন্তুক নিয়ামতের ভিতর রাখিয়াই শাস্তি প্রদান করেন; তার অর্ধাঙ্গ অবশ কোইরগা দেন, তার টেনশান বাড়াই দেন। কিংবা দিখা যায় তার গুম নাই। খালি ফেরেশানি আর ফেরেশানি। গরে গেলে বউ এর সাথে শোন্দর কতা হয় না, বরং এমুন কতা হয় যে, তখন তার বোইলতে ইসসা করে "আল্লাগো আর ফাইত্তেসিনা। উঠাই লই যাও"।

এসব হয় নিয়ামতের ভিতর থাকিয়া অ শুকর আদাই না কর ফল!

অন্যদিকে, আল্লাহপাক অভাবিকে মুসিবতে ফেলিয়া অ ফরিক্ষা নেন। মুসিবতে ফেলিয়া তিনি গরীব গুর্মার "সবর" এর ফরিক্ষা লিয়ে থাকেন। হয়ত সারাজীবনই আল্লাহপাক তাদের দুর্ভিক্ষপীড়িত করি রাখেন। যেমুন, আফ্রিকার ভুখা নাঙ্গা হাড্ডিসার মানিশগুলান। অথবা রানা প্লাজার ধ্বসে কাঙ্গালীনীদের বিল্ডিং এর তলায় চাপা দিয়া আল্লাহপাক শুইনতে চান, এরা 'আল্লাহ' 'আল্লাহ' করে কি না! 

এমনকি সারা জিবন এদেরকে নানান রকমের অভাব রোগ শোক দান করিয়া দারিদ্রের কুঠিন কষাগারে ফেলিয়া রাব্বুল আলামিন দেকতে সান, এই সোটো লুক ফইন্নির পুতেরা তাঁর প্রার্থনা খরে কি না!

যুদি এই গরীফগুলান সবর করে, তবে ফরকালে গিয়া সে ফাবে অসংখ্য নেকী আর নেকী! বলেন, সুবহানাল্লাহ!

সে এত নেকী ফাইবে যে, হাশরের ময়দানে সে আল্লাহপাকের চেয়ার এর সামনে খাড়ায়া খাড়ায়া ভাইব্বে "আরে এত্তু নেকী আইল কুত্থিকা!"

তখন, আল্লাহপাক বোইলবেন, তুমি যে অভাবে সবর কারাসো, এইটা সেই সবর ধারনের নেকী।

আসলে হইসে কি, লেবেরটরির বিতরে বিজ্ঞানিরা কত রকুম শাপ, ইঁন্দুর, গিনিফিগ লিয়া একেক রকুমের পর্যবেক্ষন সালান। তেমনি, আল্লাহপাক অ এই দুইন্যার মানশকে গরীব, ধনী বানাইয়া নিয়ামত দান করিয়া শুকরিয়া'র ফরিক্ষা নেন এবং মুসিবতে ফেলিয়া "সবর" এর ফরিক্ষা নেন। তাই বলা যায়, সব বিজ্ঞানির বিজ্ঞানি মহাবিজ্ঞানী আল্লাহপাক এর কাসে এই দুনিয়াদারি হইসে এক বিরাট "লেবেরেটরি"।

গরুপূজারি গাধাগুলো - ৯৭

পাঠিয়েছেন শান্তিদেব


২৭ নভেম্বর, ২০১৪

ডাকাতকে ডাকাত বলিয়ো না

লিখেছেন দাঁড়িপাল্লা ধমাধম

দুষ্টু নাস্তিকরা বলে থাকে, নবী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নাকি রাতের আঁধারে চোরের মত বিভিন্ন গোত্রের উপর অতর্কিতে আক্রমণ করে তাদের মালামাল লুট করতেন। নাস্তিক মন্ত্রী লতিফ সিদ্দিকী তো আমাদের প্রাণপ্রিয় নবীকে সরাসরি ডাকাতই বলে দিয়েছেন। নবীজি আসলেই যুদ্ধ করতেন নাকি ডাকাতি করতেন, আসুন জেনে নেয়া যাক এই সংক্রান্ত সংগ্রহে রাখার মত কিছু হাদিস থেকে:

১.
সহীহ বুখারি (ইফা) ২৩৭৩ আলী ইবনু হাসান ইবনু শাকীক (রহঃ) ইবনু আউন (রহঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি নাফি’ (রহঃ)-কে পত্রে লিখলাম, তিনি জওয়াবে আমালে লিখলেন যে, বনী মুস্তালিক গোত্রেরে উপর অতর্কিতভাবে অভিযান পরিচালনা করেন। তাদের গবাদি পশুকে তখন পানি পান করানো হচ্ছিলো। তিনি তাদের যুদ্ধক্ষমদের হত্যা এবং নাবালকদের বন্দী করেন এবং সেদিনই তিন জুওয়ায়রিয়া (উম্মুল মু’মিনীন)-কে লাভ করেন। (নাফি’র র বলেন) আবদুল্লাহ ইবনু উমর (রাঃ) আমাকে এ সম্পর্কিত হাদীস শুনিয়েছেন। তিনি নিজেও সে সেনাদলে ছিলেন।

২.
জামে তিরমিজী ১৬২৪:
হাসান ইবনু আলী খাল্লাল (রহঃ) আনাস ইবনু মালিক রাদিয়াল্লাহু আনহ থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ফজরের সময় ছাড়া অতর্কিত হামলা চালাতেন না। আযানের আওয়ায শুনলে বিরত হয়ে যেতেন। তা না হলে হামলা করতেন। একদিন তিনি (এমতাবস্থায় আযানের শব্দ) শোনার জন্য অপেক্ষা করতে গিয়ে জনৈক ব্যক্তিকে বলতে শুনলেন আল্লাহ আকবর আল্লাহ আকবর। তিনি বললেন দীনে ফিতরাতের উপর এ প্রতিষ্ঠত। লোকটি বলল, আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু তিনি বললেন, জাহান্নাম থেকে তুমি নাজাত পেয়ে গেলে। হাসান (রহঃ) বলেন, ওয়ালীদ-হাম্মাদ ইবনু সালামা (রহঃ) সূত্র উক্ত সনদে অনুরূপ বর্ণিত আছে। ইমাম আবূ ঈসা (রহঃ) বলেন, এই হাদীসটি হাসান-সহীহ।

৩.
জামে তিরমিজী ১৫৮৬:
মুহাম্মদ ইবনু গায়লান (রহঃ) সুলায়ম ইবনু আমির (রহঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, মু‘আবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহ ও রোমবাসীদের মধ্যে একটি (মেয়াদী) চুক্তি হয়েছিল। পরে তিনি (তাঁর বাহিনীসহ) তাদের এলাকার নিকটবর্তী স্থানে যেয়ে উপনীত হলেন এবং চুক্তির মেয়াদ যখন শেষ হল তখন তিনি তাদের বিরুদ্ধে অতর্কিত হামলা চালালেন। ... ইমাম আবূ ঈসা (রহঃ) বলেন, এই হাদীসটি হাসান-সহীহ।

৪.
জামে তিরমিজী ১৫৭৫:
কুতায়বা (রহঃ) উমার রাদিয়াল্লাহু আনহ থেকে বর্ণিত যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -এর কোন এক গাযওয়ায় (অভিযানে) এক মহিলাকে নিহত অবস্থায় পাওয়া গেল। তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেন এবং নারী ও শিশু হত্যা নিষিদ্ধ করে দেন। এই বিষয়ে বুরায়দা, রাবাহ বলা হয় রাবাহ ইবনু রাবী, আসওয়াদ ইবনু সারী‘, ইবনু আব্বাস, সাব ইবনু জাছছামা রাদিয়াল্লাহু আনহ থেকেও হাদীস বর্ণিত আছে। ইমাম আবূ ঈসা (রহঃ) বলেন, এই হাদীসটি হাসান-সহীহ। কতক সাহাবী ও অপরাপর আলিম এতদনুসারে আমল করেছেন। তারা নারী ও শিশু হত্যা হারাম বলে মত প্রকাশ করেছেন। এ হলো সুফইয়া ছাওরী ও শাফিঈ (রহঃ) -এর অভিমত। কতক আলিম রাত্রে অতর্কিত আক্রমণ এবং এমতাবস্থায় নারী ও শিশু হত্যার অনুমোদন দিয়েছেন। এ হলো আহমদ ও ইসহাক (রহঃ) -এর অভিমত। তাঁরা উভয়েই রাত্রিতে অতর্কিত হামলা পরিচালনা করার অবকাশ রেখেছেন।

৫.
জামে তিরমিজী ১৫৫৭:
কুতায়বা ও মুহাম্মদ ইবনু বাশশার (রহঃ) আবূ তালহা রাদিয়াল্লাহু আনহ থেকে বর্ণিত যে, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন কোন সম্প্রদায়ের উপর বিজয় লাভ করতেন তখন তাদের অঞ্চলে তিন দিন অবস্থান করতেন। ইমাম আবূ ঈসা (রহঃ) বলেন, এই হাদীসটি হাসান-সহীহ। হুমায়স-আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহ সূত্রে বর্ণিত হাদীসটিও (১৫৫৬ নং) হাসান-সহীহ। কতক আলিম রাতে অতর্কিত আক্রমণের অবকাশ রেখেছেন। আর কতক আলিম এটিকে মাকরূহ বা নিন্দনীয় বলে মনে করেন। ইমাম আহমাদ ও ইসহাক (রহঃ) বলেন, রাত্রে শত্রুর বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনায় কোন অসুবিধা নেই।

৬.
জামে তিরমিজী ১৫৫৬:
আনসারী (রহঃ) আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহ থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম খায়বারের অভিযানের বের হলে রাতে এসে সেখানে পৌছেন। তিনি কোথাও রাতে এলে সকাল না হওয়া পর্যন্ত তাদের বিরুদ্ধে অতর্কিত আক্রমণ করতেন না। যা হোক, সকালে খায়বারের ইয়াহূদীরা তাদের কোদাল ঝুড়িসহ (কাজের উদ্দেশ্যে) বের হল। যখন তারা তাঁকে দেখল তখন বলতে লাগল, মুহাম্মদ, আল্লাহর কসম মুহাম্মদ তার বিরাট পূর্ণাঙ্গ বাহিনী নিয়ে এসে গেছে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, আল্লাহ আকবর, খায়বার বিনষ্ট হয়ে গেল, আমরা যখন কোন শত্রু সম্প্রদায়ের অঙ্গনে অবতরণ করি তখন যাদের সতর্ক করা হয়েছিল কতই না মন্দ হয় তাদের সেই ভোর।

৭.
সহীহ মুসলিম ৪৩৯৯:
ইয়াহইয়া ইবনু ইয়াহইয়া, সাঈদ ইবনু মনসূর ও আমর আন নাকিদ (রহঃ) সাব ইবনু জাছছামা (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-কে জিজ্ঞাসা করা হলো, মুশরিকদের শিশু সন্তান সম্পর্কে, যখন রাতের আধারে অতর্কিত আক্রমণ করা হয়, তখন তাদের নারী ও শিশুরাও আক্রান্ত হয়। তখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ তারাও তাদের (মুশরিক যোদ্ধাদের) অন্তর্ভুক্ত।

৮.
সহীহ মুসলিম ৪৪০০:
আবদ ইবনু হুমাইদ (রহঃ) সাব ইবনু জাছছামা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ, আমি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -কে জিজ্ঞাসা করলাম, ইয়া রাসুলুল্লাহ! আমরা-রাতের আধারে অতর্কিত আক্রমণে মুশরিকদের শিশুদের উপরও আঘাত করে ফেলি। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ, তারাও তাদের (মুশরিক যোদ্ধাদের) অন্তর্গত।

৮.
সহীহ মুসলিম ৪৪২১:
যুহায়র ইবনু হারব (রহঃ) সালামা (রাঃ) বলেনঃ, আমরা ফাযারা গোত্রের সাথে যুদ্ধ করেছিলাম। আমাদের আমীর ছিলেন আবূ বাকর (রাঃ); রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে আমাদের আমীর নিযুক্ত করেছিলেন যখন আমাদের এবং পানির স্থানের মাঝে এক ঘণ্টা সময়ের ব্যবধান ছিল, তখন আবূ বাকর (রাঃ) আমাদেরকে রাতের শেষের দিকে সেখানে অবতরণের নির্দেশ দিলেন। সূতরাং আমরা রাতের শেষাংশেই সেখানে অবতরণ করলাম। এরপর বিভিন্ন দিক দিয়ে অতর্কিত আক্রমণ চালালেন এবং পানি পর্যন্ত পৌছালেন। আর যাদের পেলেন হত্যা করলেন এবং বন্দী করলেন।...

নিত্য নবীরে স্মরি – ১৭১



নবীজির মৃত্যুরহস্য বিষয়ে খুবই চমৎকার একটা ভিডিও (২৪ মিনিট, খিয়াল কৈরা!) দেখে নেয়া যেতে পারে। বলে রাখা উচিত, ভিডিওটি বানিয়েছে এক মমিন খ্রিষ্টান। তবে তার বক্তব্য সম্পূর্ণভাবেই ইছলামী তথ্যসূত্রনির্ভর।

প্রক্সি ব্যবহারকারীদের জন্য ভিডিও লিংক: http://youtu.be/6st_tFj6ouM

কোরান কুইজ – ৫০

নিশ্চয়ই মোমিন মুসলমানগণ কোরান সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান রাখেন। বেয়াড়া নাস্তিকগনও নিজেদেরকে কোরান-অজ্ঞ বলেন না কখনও। তাই মুসলিম-নাস্তিক নির্বিশেষে সকলেই অংশ নিতে পারেন কোরানের আয়াতভিত্তিক এই ধাঁধা প্রতিযোগিতায়। এই সিরিজের মাধ্যমেই তাঁরা নিজেদের কোরান-জ্ঞান যাচাই করে নিতে পারবেন। 

প্রশ্ন ৬০: অবিশ্বাসীরা ভুল পথে চলে, এর জন্য দায়ী কে?

১. আল্লাহ
২. শয়তান
৩. তারা নিজেরাই

উত্তর বেছে নিয়েছেন? এবারে মিলিয়ে দেখুন।
.
.
.
.
.
.
.

বেদ্বীনবাণী - ২৩



২৬ নভেম্বর, ২০১৪

ঈশ্বর কেন লোকাল

লিখেছেন মাহমুদুল হাসান শাওন

পৃথিবীতে কোনো ইউনিভার্সাল ঈশ্বর নেই। সব ঈশ্বরই লোকাল।

খ্রিষ্টানদের ঈশ্বরের নাম গড। আরবি বর্ণমালাতে তো D অক্ষরটিই নেই। তারা গড উচ্চারন করবে কীভাবে?

প্রমাণিত হল, গড আরবদের জন্য তৈরি হয়নি।

আরবদের ঈশ্বরের নাম আল্লাহ। চাইনিজ ভাষায় L অক্ষরটা নেই। ওরা আল্লাহ উচ্চারণ করবে কীভাবে ? আল্লাহকে ওরা 'আরুরাহ' জাতীয় কিছু উচ্চারণ করতে পারে। আরবরা যেমন গড কে গদ বলে ডাকতে পারে ।

ইউরোপীয় খ্রিষ্টানরা যিশুর মূর্তি বানাতো সাদা গায়ের চামড়া দিয়ে। খ্রিষ্টান ধর্ম যখন আফ্রিকাতে ঢুকল, আফ্রিকানরা তখন যিশুর যে-মূর্তিগুলো বানালো সেগুলোর গায়ের চামড়া হল কালো।

আফ্রিকান যিশু

আমাদের অঞ্চলের লোকাল ধর্ম হল বৌদ্ধধর্ম। গৌতম বুদ্ধের মূর্তি যখন আমরা বানাই, তখন বুদ্ধকে দেখতে আমাদের মতই (ভারতীয় চেহারা) লাগে।

ভারতে বুদ্ধমূর্তি

কিন্তু চাইনিজরা যখন গৌতম বুদ্ধর মূর্তি বানায়, ওদের মূর্তিগুলোর চেহারা হয় চাইনিজ টাইপ। 

চীন দেশে, তাই বুদ্ধং

সাদা যীশুর কোনো মূর্তি দেখালাম না, আপনারা সবাই দেখেছেন নিশ্চয়ই।

বাকস্বাধীনতা = আল-ব্ল্যাছফেমি

ইছলামবাজের সাক্ষাৎকার।
- ইছলামে কি বাকস্বাধীনতা নেই?
- থাকবে না কেন! নিশ্চয়ই আছে।
- ইছলামিক পরিভাষায় সেটাকে কী বলা হয়?
- আল-ব্ল্যাছফেমি, যার শাস্তি - মৃত্যুদণ্ড।


বৌদ্ধশাস্ত্রে পিতৃতন্ত্র: নারীরা হল উন্মুক্ত মলের মতো দুর্গন্ধযুক্ত - ১৫


স্বামী যে তার স্ত্রীকে অবহেলা করবে এটাই স্বাভাবিক, স্ত্রীর সবচেয়ে বড় সাধনা হচ্ছে স্বামীর মন রক্ষা করা। অবশ্যই স্বামীর অধিকার আছে তার স্ত্রীকে সন্দেহ করার, কিন্তু স্বামীর সেবা করাই স্ত্রীর একান্ত কর্তব্য, পতিদেবতাকে সন্দেহ করার কোনো অধিকার স্ত্রীর নেই। 

না, এগুলো আমার কথা নয়, ধর্মের কথা। কমবেশি এই ধরণের নীতিকথা আমাদের প্রতিটা ধর্মই শেখায়। বৌদ্ধধর্মও তার ব্যতিক্রম নয়। 

বৌদ্ধশাস্ত্র ত্রিপিটকের জাতকে এই ধরণের নির্দেশনা রয়েছে প্রচুর। এখন আমরা আলোচনা করবো ৫১৯ নম্বর জাতক, সম্বুলা জাতক নিয়ে। 

এই জাতকের অতীতবস্তুতে বলা হয়েছে, বারাণসীরাজ স্বস্তিসেনের সম্বুলা নামে এক স্ত্রী ছিলেন যিনি অতীব সৌন্দর্যবতী রূপে-গুণে অদ্বিতীয়া ছিলেন। স্বস্তিসেন কুষ্ঠরোগাক্রান্ত হলে এবং চিকিৎসায় প্রতিকার না পেলে গোপনে বনবাসে যাত্রা করেন। এই যাত্রায় সম্বুলা তার সেবাশুশ্রূষার জন্য সহযাত্রী হন। একদিন একা একা বনের মধ্যে দিয়ে সম্বুলার চলন দেখে এক দানব আকৃষ্ট হয়। দানব তার সতীত্ব নষ্ট করতে চাইলে তখন দৈববাণী হয়: 
সুপণ্ডিতা, জিতেন্দ্রিয়া, ইনি অতি যশস্বিনী
অগ্নিসমা, উগ্রতেজা, রমণীর শিরোমণি।
এমন সতীকে করিস যদি ভক্ষণ
করিব আমি তোর শির বিদারণ।
এ পতিব্রতার দেহ স্পর্শে তোর কলুষিত
করিস না, ছাড় শীঘ্র, চাস যদি নিজ হিত। 
এরপর দানব সম্বুলাকে ছেড়ে দিলো, সেখান থেকে কোন রকমে বেঁচে গৃহে ফিরে স্বামীকে না দেখতে পেয়ে সম্বুলা কাঁদতে শুরু করেন। পরে স্বামী স্বস্তিসেন এলে নিজের বিলম্বের প্রকৃত কারণ এড়িয়ে অন্য কারণ বলেন সম্বুলা। কিন্তু এই বিলম্বের কারণ স্বামীকে সন্তুষ্ট করতে পারে না। স্বামী স্বস্তিসেন বলেন:
রমণীজাতির বুদ্ধি নানা দিকে খেলে
চৌরী তারা, সত্য সদা দুই পায়ে ঠেলে।
উদকে মৎস্যের গতি বুঝা নাহি যায়
সেইরুপ স্ত্রী চরিত্র বুঝা বড় দায়। 
স্বস্তিসেনের এ প্রকার অবিশ্বাসের পরেও সম্বুলা স্বামীসঙ্গ পরিত্যাগ করে না। সে আপন সত্যবলে স্বামীসেবা করে যাবার প্রতিজ্ঞা করে। স্বস্তিসেন আবার বেশি অসুস্থ হয়ে পড়লে সে নিজের সতীত্ব প্রমাণের জন্য স্বস্তিসেনের শরীরে পানি ঢেলে দিলে স্বস্তিসেন সুস্থ হয়ে উঠে। কিন্তু এতো কিছুর পরও স্বস্তিসেন তার স্ত্রীকে অবহেলাই করে গেছেন। স্বামীর অবহেলাই যেন নারীর নিয়তি!

(চলবে) 

অপরাধ ও শাস্তি



২৫ নভেম্বর, ২০১৪

ইসলাম ও ইহুদি ধর্মের কিছু সাদৃশ্য

লিখেছেন বিভাস মন্ডল

সাধারণত মুসলমানরা ইহুদিদের দেখতে পারে না। ইহুদিরাও সাধারণত মুসলমানদের দেখতে পারে না। তবে ইসলাম ও ইহুদি ধর্মে পার্থক্য যেমন আছে, তেমনি বেশ কিছু ক্ষেত্রে সাদৃশ্যও আছে।

১. 
মুসলমান ও ইহুদিরা একেশ্বরবাদে বিশ্বাসী। সৃষ্টিকর্তা এক এবং তাঁর কোন শরীক নেই।

২. 
মুসলমান ও ইহুদিদের মতে, তাদের জাতির পিতা হযরত ইব্রাহীম (আঃ) / আব্রাহাম। সমগ্র মানব জাতির পিতা হযরত আদম (আঃ) / অ্যাডাম।

৩. 
মুসলমানরা প্রতিদিন পাঁচ বার (ভোরে , দুপুরে , বিকেলে , সন্ধ্যায় ও রাতে) নামাজ আদায় করে। ইহুদিরা প্রতিদিন তিন বার (ভোরে, দুপুরে ও রাতে) প্রার্থনা করে।

৪. 
এই দুই ধর্মেই প্রার্থনার জন্য কিবলা (দিক) আছে। মুসলমানদের কিবলা মক্কার কাবা ও ইহুদিদের কিবলা (দিক) জেরুজালেমের প্রার্থনা স্থান।

৫. 
মুসলমানদের জীবনে একবার হজ্জ্ব করতে হয় মক্কায়। ইহুদিদের বছরে তিনবার তীর্থ যাত্রা করতে হয় জেরুজালেমে।

৬. 
মুসলমান ও ইহুদি পুরুষদের খতনা (circumcision) করতে হয়।

৭. 
দাড়ি রাখতে বলা আছে দুই ধর্মেই। দাড়ি কাটা দুই ধর্মের দৃষ্টিতে গুনাহ / পাপ।

৮. 
সম্পদ দান করা দুই ধর্মেই অবশ্যপালনীয় বিষয়। মুসলমানরা নিজের সম্পদের একটি অংশ যাকাত হিসেবে দেয়। ইহুদিরা তাদের সম্পদের একটি অংশ প্রতি বছর চ্যারিটি হিসেবে দেয়।

৯. 
মুসলমানরা কোনো ব্যাক্তিকে দেখলে সালাম দেয়। ইহুদিরা কোনো ব্যাক্তিকে দেখলে সালোম / শালোম বলে। দুই শব্দের অর্থই - শান্তি।

১০. 
দুই ধর্মেই বিশেষ আইন রয়েছে। মুসলমানদের জন্য শরীয়াহ আইন। ইহুদীদের জন্য হালাখা আইন। এই দুই আইনেরই শাস্তির বিধান কঠোর। জেনা (বিয়ে বহির্ভূত শারীরিক সম্পর্ক) করা এই আইন অনুসারে মারাত্মক অপরাধ। জেনা করলে মুসলমানদের শরীয়াহ আইন মোতাবেক ১০০ বেত্রাঘাত। ইহুদীদের হালাখা আইন মোতাবেক পাথর ছুড়ে মারা।

১১. 
ইসলাম ধর্ম মতে, শুক্রবার সপ্তাহের পবিত্র দিন ও বিশেষ ইবাদতের দিন - জুম্মা। ইহুদি ধর্ম মতে শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত সপ্তাহের পবিত্র সময় ও বিশেষ প্রার্থনার সময়।

১২. 
দুই ধর্মেই নির্দিষ্ট খাবারের অনুমতি আছে। মুসলমানদের জন্য হালাল খাবার। ইহুদিদের জন্য কোশার খাবার। দুই ধর্ম মতেই পশুর রক্ত ও শুকরের মাংস কঠোরভাবে নিষিদ্ধ। একজন মুসলমান ইহুদিদের কোশার খাবার খেতে পারবে। একজন ইহুদী মুসলমানদের হালাল খাবার খেতে পারবে। তবে মুসলমানদের জন্য কোশারের মধ্যে অ্যালকোহল খাওয়ার অনুমতি নেই কারন যে কোনো ধরনের অ্যালকোহল মুসলমানদের জন্য হারাম।

১৩. 
পশু জবাইয়ের নিয়ম দুই ধর্মেই প্রায় এক ধরনের। মুসলমানেরা প্রতিটি পশু জবাইয়ের আগে আল্লাহর নাম স্মরণ করে। ইহুদিরা শুধু একবার প্রভুর নাম স্মরণ করে একসাথে সব পশু জবাই করে।

১৪. 
মেয়েদের ক্ষেত্রে দুই ধর্মেই মাথায় কাপড় দেয়ার বিধান আছে, তবে ইসলাম ধর্মে মেয়ে প্রাপ্তবয়স্ক হলেই মাথায় কাপড় দেয়ার বিধান আছে। আর ইহুদি ধর্মে মেয়ে বিয়ে করলে মাথায় কাপড় বাধার বিধান আছে। নারী ও পুরুষের জন্য শালীন কাপড় পরার বিধান দুই ধর্মে আছে।

১৫. 
পুরুষের টুপি পড়ার বিধান দুই ধর্মেই আছে।

১৬. 
ইবাদত/প্রার্থনার অংশ হিসেবে সারাদিন পানাহার থেকে বিরত থাকার বিধান দুই ধর্মেই আছে। মুসলমানদের রমজান মাসের প্রতিদিন রোযা রাখা ফরজ আর ইহুদিদের বছরে পাঁচটি বিশেষ দিনে পানাহার থেকে বিরত থাকা অবশ্য পালনীয়।

১৭. 
সন্তান জন্ম নিলে মুসলমানদের অনেকে বাচ্চার কানের কাছে আযান দেয়া হয়। ইহুদিরা অনেকে বাচ্চার কানের কাছে শিমা দেয়।

১৮. 
দুই ধর্মেই সুদ নিষিদ্ধ।

১৯. 
ধর্মীয় দিনপঞ্জিকায় মাস নতুন চাঁদ দেখে ঠিক করা হয় দুই ধর্মেই।

২০. 
সন্তানের নাম আনুষ্ঠানিকভাবে রাখার সময় ছাগল বা ভেড়া জবাই দেয়া দুই ধর্মেরই বিধান।

২১. 
দুই ধর্ম মতেই জেরুজালেম হচ্ছে পবিত্র নগরী। মুসলিমদের জন্য মক্কা হচ্ছে সবচেয়ে পবিত্র নগরী তারপর মদীনা তারপর জেরুজালেম।  ইহুদিদের জন্য জেরুজালেম সবচেয়ে পবিত্র নগরী। আগে মুসলিমদের কিবলা জেরুজালেমে ছিলো। পরে আল্লাহর নির্দেশে মক্কা নগরীর কাবা হয় মুসলিমদের কিবলা।

২২. 
কোরআন অনুসারে, অমুসলিমদের মধ্যে একমাত্র ইহুদি-নাছারা জাতির নারীর সাথে মুসলিম পুরুষের বিয়ের অনুমতি আছে। আলেম ওলামাদের মতে এই বিয়ে জায়েজ হবে তবে তা মাকরুহ/পছন্দনীয় কাজ না। এই ধরনের বিয়ে করলে শর্ত হলো সন্তান মুসলিম হতে হবে।

২৩.
ইহুদি পুরুষরা প্রার্থনা করার সময় মাথায় টুপি পরে। ইহুদিদের টুপির সাথে মুসলমানদের টুপির মিল আছে।

২৪.
ইহুদি বিবাহিত মহিলাদের মাথায় কাপড় দিয়ে চুল ঢেকে রাখা ও লম্বা কাপড় পরা বাধ্যতামূলক। মুসলমান যে কোনো প্রাপ্তবয়স্ক মেয়ের (বিবাহিত , অবিবাহিত) মাথায় কাপড় দেয়া বাধ্যতামূলক ও শরীর ঢেকে রাখতে লম্বা কাপড় পড়ার বিধান আছে।

একটি ছহীহ ইছলামী পরিবার


ঈমানদীপ্ত কাহিনীঁ - ৫ (সুন্নতের পাগড়ি)

লিখেছেন জল্লাদ মিয়া

আমরা যখন মসজিদে যাই, তখন দেখিতে পাই হুজুরেরা মাথায় পাগড়ি দিয়া আছেন। সচেতন মুসলমান মাত্রই  পিয়ারে নবীর প্রত্যেক সুন্নত মুহাব্বতের সহিত পালন করেন। আমরা পাগড়ি মাথায় দেওয়ার ফজিলত সম্পর্কে জানি, কিন্তু নামাজের সময়কার পাগড়ির ইতিবৃত্ত সম্পর্কে অবগত নই। আজ আমরা নামাজের পাগড়ির ইতিহাস সম্পর্কে জানিব।

আপনারা হয়তো জানিয়া থাকিতে পারেন যে, তত্‍কালীন আরবেরা খুব বেয়াদপ বেতমিজ আছিল (যার প্রভাব এখনও পুরোপুরি যায় নাই!); তাহাদের ওভার-রসিকও বলা যায়। একটু বেশি পরিমাণে রসিকতা করিত আরকি!

তো একদা মুহাম্মদের মাথায় একটা ফোঁড়া উঠিল। আহা! কী ব্যাথা! তিনি মাথায় ফোঁড়া নিয়াই মসজিদে ইমামতি করিতে গেলেন। সেখানে কয়েকজন সাহাবী মুহাম্মদের ফোঁড়া দেখিয়া ফেলিল। তাহারা মুহাম্মদের মস্তক লইয়া রসিকতা করিতে চাহিল। কিন্তু মুহাম্মদের শরীরে ৩০ হর্স পাওয়ার আছিল বলে সাহাবিরা সুবিধা করিতে পারিতেছিল না। তাহারা ভাবিলো, আগে মুহাম্মদ নামাজে দাঁড়াক। তারপর দেখা যাবে!

মুহাম্মদ যথাসময়ে ইমামতি শুরু করিলেন। পেছনে অন্যরা ইমাম সাহেবকে ইক্তেদা করিয়া আল্লাফাকের রাহে নামাজ আরম্ভ করিল। কিন্তু কয়েকজন ওভার-রসিক নামাজের নিয়ত করিল না, এমনি দাঁড়াইল। মুহাম্মদ কেরাত পড়িলেন, রুকু করিলেন, তাছবিহ পড়িলেন এবং সিজদায় পড়িলেন। ওভার-রসিকদের রসিকতার সুযোগ মিলিল। তাহাদের একজন মুহাম্মদের মাথায় একখান চাট্টি বসাইল। সেটা মুহাম্মদ অনেক কষ্ট করিয়া হজম করিলেন। এরপর আরেকজন সাহাবী মুহাম্মদের মাথায় খড়ম বসাইল। এটা গিয়া লাগিল সরাসরি মুহাম্মদের মাথার ফোঁড়ায়!

মুহাম্মদ এইবার আর সহ্য করিতে পারিলেন না। তিনি নামাজ ভাঙ্গিয়া বেতমিজগুলারে দৌড়াইয়া লইয়্যা গেলেন। সে যাত্রায় বেয়াদপ সাহাবিরা অতি কষ্টে রক্ষা পাইল, কিন্তু মুহাম্মদের মাথার দুশ্চিন্তা দূরীভূত হইলো না। তিনি ভাবিতে লাগিলেন, কী করা যায়? সাহাবিদের রসিকতা বন্ধ করা যাইবে না। বরং এমন ব্যবস্থা করিতে হইবে, যেন তিনি হারামজাদাগুলার রসিতায় আপাতত ব্যাথা না পান। ভাবিতে লাগিলেন, ভাবিতে লাগিলেন...

এমন সময় তাহার মাথায় একখান দারুণ বুদ্ধি আসিল। মাথায় একটা ত্যানা মুড়িয়ে নিলেই তো ল্যাঠা চুকে যায়! তিনি তাহলে চপ্পলের আঘাতে আর ব্যাথা পাবেন না।

পরের দিন তিনি মাথাটাকে ত্যানায় মুড়িয়ে মসজিদে গেলেন। সাহাবীরা জিজ্ঞেস করিলো, মুহাম্মদ, ইহা তুমি কী করিয়াছ? 

মুহাম্মদ অকপটে উত্তর দিলেন, ইহার নাম পাগড়ি! নামাজকালে পাগড়ি বাঁধা সুন্নত!

সেই থেকে মুসলমানের মাথায় ফোঁড়া না উঠিলেও মাথায় একখানা কাপ্পড় প্যাঁচাইয়্যা মসজিদে যায়!

নামাজরঙ্গ - ৩৭


২৪ নভেম্বর, ২০১৪

ওহুদ যুদ্ধ-৪: শুরু হলো যুদ্ধ!: কুরানে বিগ্যান (পর্ব- ৫৭): ত্রাস, হত্যা ও হামলার আদেশ – ত্রিশ

লিখেছেন গোলাপ

পর্ব ১ > পর্ব ২ > পর্ব ৩ > পর্ব ৪ > পর্ব ৫ > পর্ব ৬ > পর্ব ৭ > পর্ব ৮ > পর্ব ৯ > পর্ব ১০ > পর্ব ১১ > পর্ব ১২ > পর্ব ১৩ > পর্ব ১৪ > পর্ব ১৫ > পর্ব ১৬ > পর্ব ১৭ > পর্ব ১৮ > পর্ব ১৯ > পর্ব ২০ > পর্ব ২১ > পর্ব ২২ > পর্ব ২৩ > পর্ব ২৪ > পর্ব ২৫ > পর্ব ২৬ > পর্ব ২৭ > পর্ব ২৮ > পর্ব ২৯ > পর্ব ৩০ > পর্ব ৩১ > পর্ব ৩২ > পর্ব ৩৩ > পর্ব ৩৪ > পর্ব ৩৫ > পর্ব ৩৬ > পর্ব ৩৭ > পর্ব ৩৮ > পর্ব ৩৯পর্ব ৪০ > পর্ব ৪১ > পর্ব ৪২ > পর্ব ৪৩ > পর্ব ৪৪ > পর্ব ৪৫ > পর্ব ৪৬ > পর্ব ৪৭ > পর্ব ৪৮ > পর্ব ৪৯ > পর্ব ৫০ > পর্ব ৫১ > পর্ব ৫২ > পর্ব ৫৩ > পর্ব ৫৪ > পর্ব ৫৫ > পর্ব ৫৬

স্বঘোষিত আখেরি নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) ও মক্কাবাসী কুরাইশদের মধ্যে ইসলামের ইতিহাসের যে দ্বিতীয় রক্তক্ষয়ী যুদ্ধটি ওহুদ প্রান্তে সংঘটিত হয়েছিল তার কারণ ও প্রেক্ষাপট, আক্রান্ত না হওয়া সত্ত্বেও আগ বাড়িয়ে নিজেদের আবাসস্থল মদিনা থেকে বের হয়ে ওহুদ প্রান্তে গিয়ে কুরাইশদের সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হতে মুহাম্মদের বহু অনুসারীরা কী কারণে অনিচ্ছুক ছিলেন এবং এই যুদ্ধে মদিনার ইহুদিদের ভূমিকা কেমন ছিল, তার বিস্তারিত আলোচনা আগের তিনটি পর্বে করা হয়েছে। 

আবদুল্লাহ বিন উবাই বিন সালুল ও আরও প্রায় ৩০০ মুহাম্মদ অনুসারী (এক-তৃতীয়াংশ) মাঝপথ থেকে মদিনায় প্রত্যাবর্তনের উদ্দেশ্যে বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর মুহাম্মদ তাঁর প্রায় ৭০০ জন অবশিষ্ট অনুসারীকে সঙ্গে নিয়ে ওহুদ প্রান্তে পৌঁছান। তিনি যুদ্ধের প্রস্তুতি গ্রহণ করেন।

মুহাম্মদ ইবনে ইশাকের (৭০৪-৭৬৮ সাল) বর্ণনা:

‘আল্লাহর নবী তাঁর অনুসারীদের যুদ্ধের জন্য সারিবদ্ধ করেন, প্রায় ৭০০ জন মানুষ। তিনি আবদুল্লাহ বিন যুবায়েরের নামের বানু আমর বিন আউফ গোত্রের এক ভাইকে তীরন্দাজ বাহিনীর নেতৃত্বে নিয়োগ করেন। ঐ দিন আবদুল্লাহ বিন যুবায়েরের পরনে ছিল সাদা পোশাক, যা তাকে অন্যদের থেকে আলাদা করেছিল।

তাদের সাথে ছিল ৫০ জন তীরন্দাজ। মুহাম্মদ তাদেরকে বলেন, "তোমাদের তীরের সাহায্যে অশ্বারোহী বাহিনীকে আমাদের কাছ থেকে দূরে রাখবে এবং পেছন দিক থেকে তাদেরকে আমাদের কাছে আসতে দেবে না, তা যুদ্ধের ফলাফল আমাদের পক্ষে হোক অথবা বিপক্ষে। তোমরা ঐ স্থানেই থাকবে যাতে আমরা তোমাদের দিক থেকে আক্রান্ত না হই।"

তারপর আল্লাহর নবী দুইটি বর্ম-আবরণ (Coats of mail) পরিধান করেন এবং যুদ্ধের ঝাণ্ডাটি মুসাব বিন উমায়ের নামের বানু আমর গোত্রের এক ভাইয়ের হাতে দেন।

তারপর তিনি তাঁর তরবারি হাতে নেন এবং তা ঘুরিয়ে আস্ফালন (Brandish) করে বলেন, "তোমাদের মধ্যে কে এমন আছে, যে এই তরবারির যোগ্য?"

উমর তা নেয়ার জন্য উঠে দাঁড়ান ও বলেন," আমি এটি নেয়ার যোগ্য", কিন্তু আল্লাহর নবী ঘুরে দাঁড়ান এবং দ্বিতীয় বার একই বাক্য উচ্চারণের মাধ্যমে তা ঘুরিয়ে আস্ফালন করেন।

তারপর আল-যুবায়ের বিন আল-আওয়াম উঠে দাঁড়ান এবং তিনিও প্রত্যাখ্যাত হন। তারপর বানু সায়েদা (Banu Sa'ida) গোত্রের দুযানা সিমাক বিন খারাশা (Dujana Simak b. Kharasha) নামের এক ভাই উঠে দাঁড়ান ও তা গ্রহণ করেন।

তিনি [আবু দুযানা] জিজ্ঞাসা করেন, "হে আল্লাহর নবী, এটি গ্রহণের যোগ্যতা কী?"

তিনি জবাবে বলেন, "তা এই যে, এটি দিয়ে তুমি শত্রুদের আঘাত/বধ (Smite) করতেই থাকবে যতক্ষণ না এটি বেঁকে যায়।"

যখন তিনি বলেন যে, তিনি এটি গ্রহণ করে তার মর্যাদা রাখবেন, তিনি তা তাকে দেন। আবু দুযানা ছিলেন সাহসী কিন্তু যুদ্ধক্ষেত্রে তিনি ছিলেন দাম্ভিক। যখনই তিনি তাঁর লাল পাগড়িটি পরিধান করতেন, জনগণ জানতেন যে, তিনি যুদ্ধে প্রস্তুত।’ --- [1][2][3]

ঐ দিন মুহাম্মদ অনুসারীদের সিংহনাদ ছিল, "হত্যা কর, হত্যা কর"!’ [4]
(The companions’ war-cry that day was "Kill, Kill!")!

অন্যদিকে,

বদর যুদ্ধে আবু সুফিয়ান বিন হারবের স্ত্রী হিন্দ বিনতে ওতবার পিতা ওতবা বিন রাবিয়া ও তাঁর চাচা সেইবা বিন রাবিয়া এবং ভাই আল-ওয়ালিদ বিন ওতবা যেমন "তোমাদের সাথে আমাদের কোনোই বিবাদ নেই" ঘোষণা দিয়ে আনসারদের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হতে চাননি (পর্ব-৩২), তেমনই ওহুদ যুদ্ধেও আবু সুফিয়ান ও তাঁর সহকারীরা আনসারদের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হতে চাননি!

যুদ্ধ শুরুর প্রাক্কালে আবু সুফিয়ান যুদ্ধে আগত মুহাম্মদ অনুসারী আউস ও খাযরাজ গোত্রের লোকদের উদ্দেশে এক বার্তাবাহক পাঠান। বার্তাবাহক মারফত তিনি তাদের স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে, তাঁরা এসেছেন তাঁদের যাবতীয় দুরবস্থার জন্য যে-ব্যক্তিটি দায়ী, সেই মুহাম্মদের সাথে মোকাবেলা করতে; তাদের সাথে যুদ্ধ করতে নয়!

মুহাম্মদ ইবনে ইশাকের বর্ণনার পূর্বানুবৃত্তি (Continuation):

'কুরাইশরা তাদের লোকদের জড় করেন। প্রায় ৩০০০ জন মানুষ, তাদের সাথে ছিল ২০০ টি ঘোড়া। বাম পার্শ্বের অশ্বারোহী বাহিনীর সেনাপতি ছিলেন খালিদ বিন আল-ওয়ালিদ এবং ডান পার্শ্বের অশ্বারোহী বাহিনীর নেতৃত্বে ছিলেন ইকরিমা বিন আবু-জেহেল। ---

‘তখন আবু সুফিয়ান এই খবর জানিয়ে এক বার্তাবাহক পাঠান,

"হে আউস ও খাযরাজ গোত্রের লোকেরা, আমাকে আমার জ্ঞাতি ভাইয়ের (Cousin) সাথে মোকাবেলা করতে দাও, তারপর আমরা তোমাদের ছেড়ে চলে যাব। কারণ তোমাদের সাথে আমাদের যুদ্ধের কোনো প্রয়োজন নেই। কিন্তু তারা তাকে অভদ্র জবাব দেয়।” ----

(Now Abu Sufyan had sent a messenger saying, 'You men of Aus and Khazraj, leave me to deal with my cousin and we will depart from you, for we have no need to fight you'; but they gave him a rude answer.)  

বানু আবদ-দার গোত্রের লোকেরা ছিল যুদ্ধের ঝাণ্ডা বহনকারী দল। তাদেরকে যুদ্ধে উদ্দীপ্ত করার জন্য আবু-সুফিয়ান বলেন, "এই যে বানু আবদ-দার, বদর যুদ্ধের দিন তোমাদের দায়িত্বে ছিল এই যুদ্ধ-ঝাণ্ডা - তোমরা জানো যে, সেদিন কী হয়েছিল। জনগণ নির্ভর করে যুদ্ধ-ঝাণ্ডার ভাগ্যের ওপর। তাই তোমরা হয় তা দক্ষতার সাথে অবশ্যই রক্ষা করবে, নতুবা তা আমাদের হাতে অবশ্যই সোপর্দ করবে - আমরা (তা রক্ষার দায়িত্ব থেকে) তোমাদের ঝামেলা মুক্ত করবো।"

বিষয়টির বিবেচনায় তারা অপমানিত বোধ করে এবং তাঁকে ধমক দিয়ে বলে, "তুমি কি চাও যে, আমরা আমাদের এই ঝাণ্ডা তোমাকে সমর্পণ করি? আগামীকাল যখন যুদ্ধ শুরু হবে, তখন দেখবে, আমরা কীরূপে যুদ্ধ করি," - আবু সুফিয়ান এটিই চেয়েছিলেন। --

যখন দুই পক্ষ একে অপরের নিকটবর্তী হয়, হিন্দ বিনতে ওতবা তাঁর সঙ্গের মহিলাদের নিয়ে উঠে দাঁড়ান ও সৈন্যদের পেছনে পেছনে যে খঞ্জনিগুলো তারা সৈন্যদের উদ্দীপ্ত করার জন্য বাজাচ্ছিল, তা তুলে নেন ও বলতে থাকেন:

"হে আবদ-দার এর দারক,
তোমরা আমাদের রক্ষক,
প্রতিটি শাণিত বল্লম দ্বারা করো তাদের আঘাত!"

তিনি আরও বলেন,

"যদি তোমরা হও আগুয়ান বাঁধিব আলিঙ্গনে,
বিছাইব মোরা কোমল গালিচা তোমাদেরই পদতলে;
যদি তোমরা হটো পিছু জানাবো মোরা বিদায়,
এমনই বিদায় যেথায় মোদের কোনো ভালবাসা আর নাই।"’ [5] [6]

>>> পাঠক, আপনাদের নিশ্চয়ই মনে আছে যে, বদর যুদ্ধে মুহাম্মদ অনুসারীরা কুরাইশ নেতা আবু সুফিয়ান বিন হারব ও তাঁর স্ত্রী হিন্দ বিনতে ওতবার এক জোয়ান পুত্র হানজালাকে করেন খুন ও আর এক পুত্র আমরকে করেন বন্দী (পর্ব-৩৭)।

শুধু তাঁদের সন্তান হানজালাকেই নয়, মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীরা বদর প্রান্তে হিন্দ বিনতে ওতবার পিতা ওতবা, চাচা সেইবা ও ভাই আল-ওয়ালিদকেও নৃশংসভাবে খুন করেন (পর্ব-৩২)।

তা সত্ত্বেও, এই মহীয়সী মহিলাটি একই দিনে তাঁর নিজ পুত্র, বাবা, চাচা ও ভাইয়ের খুনের জন্য প্রত্যক্ষভাবে দায়ী মুহাম্মদের মক্কায় অবস্থিত কন্যা জয়নাবকে পরম স্নেহ ও সমবেদনায় সর্বাত্মক সাহায্যের আশ্বাস নিয়ে এগিয়ে এসেছিলেন (পর্ব-৩৯)।

স্বজনহারা শোকাবহ সেই মহীয়সী হিন্দ বিনতে ওতবা আজ যুদ্ধের ময়দানে! তিনি এসেছেন তাঁর পিতা, পুত্র, ভাই ও চাচার খুনের প্রতিশোধ নিতে।

একই ভাবে ইকরিমা বিন আবু-জেহেল এসেছেন তাঁর পিতা আবু জেহেলের হত্যার প্রতিশোধ নিতে! কুরাইশ নেতা আবু জেহেলকে কীরূপ নৃশংসতায় বদর যুদ্ধে খুন করা হয়েছিল, তার বিস্তারিত আলোচনা পর্ব বত্রিশে করা হয়েছে।

(চলবে)

তথ্যসূত্র ও পাদটীকা:

[1] “সিরাত রসুল আল্লাহ”- লেখক: ইবনে ইশাক (৭০৪-৭৬৮ খৃষ্টাব্দ), সম্পাদনা: ইবনে হিশাম (মৃত্যু ৮৩৩ খৃষ্টাব্দ), ইংরেজি অনুবাদ:  A. GUILLAUME, অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস, করাচী, ১৯৫৫, ISBN 0-19-636033-1, পৃষ্ঠা ৩৭৩ http://www.justislam.co.uk/images/Ibn%20Ishaq%20-%20Sirat%20Rasul%20Allah.pdf

[2] “তারিক আল রসুল ওয়াল মুলুক”- লেখক:  আল-তাবারী (৮৩৮-৯২৩ খৃষ্টাব্দ), ভলুউম ৭, ইংরেজী অনুবাদ: W. Montogomery Watt and M.V. McDonald, নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি প্রেস, ১৯৮৭ – পৃষ্ঠা (Leiden) ১৩৯৮,  

[3] Ibid আল-তাবারী - পৃষ্ঠা (Leiden) ১৩৯৪

[4] Ibid মুহাম্মদ ইবনে ইশাক (ইবনে হিশামের নোট) - পৃষ্ঠা ৭৫৩  

[5] Ibid মুহাম্মদ ইবনে ইশাক - পৃষ্ঠা ৩৭৪

[6] Ibid আল-তাবারী - পৃষ্ঠা (Leiden) ১৩৯৯-১৪০০

বিশ্বাস, জাদু ও বিশ্বাসের জাদু



সহী জঙ্গি দলকে সমর্থন করুন

লিখেছেন আসিফ আল আজাদ

পুরানো এক ঐতিহাসিক মহাশক্তিকে পুনরায় জাগিয়ে তোলার এ এক গভীর ষড়যন্ত্র!

ঘটনা তো মনে হচ্ছে সুবিধার না। বিরাট ঐতিহাসিক কানেকশান খুজে পাচ্ছি। মিশরীয় দেবী Isis (আইসিস) এর সাথে ইসলামিক জঙ্গি বাহিনী ISIS-এর নামের এত মিল কেন? এই মিল তো কিছুদিন আগেও ছিল না!


প্রথমে এদের নাম ছিল শুধু ISI (Islamic State of Iraq).
তারপর নাম বদল করে হল ISIL ( Islamic State of Iraq and the Levant).
আর এখন সরাসরি ISIS ( Islamic State of Iraq and Syria)

সবগুলো নাম খেয়াল করলে দেখা যায়, তাদের কর্মকাণ্ডের সাথে নামের কোনো মিল নেই। এই Islamic State কি এরা শুধু ইরাক ও সিরিয়ায় চায়? না। এদের কর্মকাণ্ড সারা পৃথিবীব্যাপী। তাহলে নামের পেছনে কেন এত কারসাজি?

এর পেছনে কঠিন রহস্য লুক্কায়িত। একবারে দেবী Isis-এর নাম নিলে সবাই সহজেই বুঝে ফেলতে পারে, তাই আস্তে আস্তে নাম পরিবর্তন করে শেষমেষ মহাশক্তিধর দেবী আইসিস এর নাম নেওয়া। গোপনে এরা আসলে দেবী আইসিস-এর পূজারি। আগেই বলেছিল সবাই, "ইহা সহী ইসলাম নয়।"

ইসলামে দেবদেবীর কোনো স্থান নেই। একটি সহী ইসলামী বেহেস্তি জিহাদি ভাইদের পবিত্র দলের নাম কোনো পৌত্তলিক ধর্মের দেবীর নামে হতে পারে না। এরা পুরোনো শক্তিকে কাজে লাগিয়ে নিজেদের স্বার্থ হাসিলের চেষ্টায় অাছে। আল-কায়দা সহ আরো অনেক সহী ইসলামী নামের সহী জিহাদি দল আছে, তাদের সাথে থাকুন, তাদেরকে সহায়তা করে বেহেস্ত হাসিল করুন।

পুনশ্চ. ক'দিন ধরে শরীরটা বেশ খারাপ। আজ ভোর থেকে আবার পেটের অবস্থাও একটু খারাপ। টয়লেটে বেশি সময় দিতে হচ্ছে। তো টয়লেটে বসে থেকে এই সময়টা অপচয় না করে এই আবিষ্কারটা করে ফেললাম। এই পোস্টের বেশিরভাগ অংশ মোবাইল ফোনটা হাতে নিয়ে কমোডে বসেই লেখা।

ইছলামী জঙ্গিদের দিনকাল



২৩ নভেম্বর, ২০১৪

ধর্মীয় প্রশ্নের ব্যাঙগানিক উত্তর - ০৬

[ফেইসবুকে একটা মজাদার পেইজ খোলা হয়েছে "ধর্মীয় প্রশ্নের ব্যাঙগানিক উত্তর" নামে। কেউ একজন একটা মজাদার, বিটকেলে বা আপাত নিরীহ প্রশ্ন করছে, আর অমনি অন্যেরা ঝাঁপিয়ে পড়ে সরবরাহ করছে সেটার বৈচিত্র্যময় ব্যাঙগানিক (ব্যঙ্গ + বৈজ্ঞানিক) উত্তর। 

সেই পেইজ থেকে নির্বাচিত প্রশ্নোত্তরের ধারাবাহিক সংকলন প্রশ্নকারী ও উত্তরদাতাদের নামসহ ধর্মকারীতে প্রকাশ করা হবে নিয়মিত। বলে রাখা প্রয়োজন, এই নির্বাচনটি একান্তভাবেই ধর্মপচারকের পছন্দভিত্তিক। ফলে ভালো কোনও প্রশ্নোত্তর আমার চোখ এড়িয়ে যাবার সম্ভাবনা তো আছেই, তবে সবচেয়ে বেশি আছে অন্যদের সঙ্গে মতভেদের সম্ভাবনা। নিজ গুণে (ভাগে, যোগে, বিয়োগে) মাফ কইরা দিয়েন।]

৫১.
- নামাজ পড়া বা মন্দিরে মুর্তিরে পূজা করতে পাছা উঁচা করতে হয় কেনু? (কাজি শামসু)
- স্রষ্টাকে স্বর্গের সুরঙ্গ দেখানোর জন্য। (Prodip Traveller)

৫২.
- পিছলাম নামের ধর্মটি শিয়া, সুন্নি, ওহাবী. . . - এতগুলা মতবাদে বিভক্ত কেনু? (Farzana Akter)
- আসমানী কিতাব আসমান থাইকা ভূমিতে পইড়াই খণ্ড খণ্ড হইয়্যা গেছে। (Masum Rahman)

৫৩. 
- আচ্ছা, ইহুদিরা মাথায় ছোট টুপি পরে কেনু? (দান্তে)
- কিপটা ইহুদিদের কাপড় বাঁচানোর ধান্দা। (Neon Seven)

৫৪. 
- য়াল্ল্যা বলেছে তার আ-কার নাই। কিন্তু অন্যান্য কারগুলিও নাই কেন তার? যেমন, ই-কার, ঈ-কার, উ-কার, ঊ-কার প্রভৃতি। (Tamanna Jhumu)
- কিতা কইন! হেতের যে বি-কার রইছে হেইডা আফনের চক্ষে পরে না! (Mahmud Reza)

৫৫. 
- সূর্য যখন আল্লার আরশের নীচে সেজদায় যায় কিংবা পঙ্কিল জলাশয়ে অস্ত যায়, তখন আম্রিকার আকাশে যেইটা থাকে, সেইটা কি সূর্যের যমজ ভাই? (ঔপপত্তিক ঐকপত্য)
- আল্লা কি আম্রিকার ভিসা পাইছিলো? আম্রিকার আকাশে কী থাকে, সেইটা কেম্নে জানবে? (অনুসন্ধানী আবাহন)
#
- আল্লা আরশে বসে ঘুমায়, আর সেই ফাঁকে সুর্য ইতিউতি যায়। (Shiji Sejuti)
#
- এই সূর্য ইহুদি-নাসারাদের ষড়যন্ত্র। কুরানে সূর্যের কথা আগেই বলা হয়েছে। ওরা গোপনে সেটা নিয়ে রিসার্চ করে সূর্য বানিয়ে নিজেদের আকাশে স্থাপন করেছে। এরপরেও কে অস্বীকার করবে, কুরান বিজ্ঞানময়? (ইমরান ওয়াহিদ)
#
- আল্লা যে খিরিষ্টানদের জন্য আরেকটা বানাইসে, তা কোরানে বলার কূনু দরকার নাই। (Mahbubul Hasan)
#
- এনে আপ্নেরা খালি খালি য়্যাল্লা, মহাবদ আর সুর্য আরশের সহবত, ষড়যন্ত্র তত্ত্বে পড়ি আছেন! তার আগে তামাম হেঁদু, ইহুদি, নাসারা আর খ্রেস্টানগো ভগবান, ঈশ্বর আর গড বেবাকডি কি বইসা ছিড়িতে ছিড়িতে সরোদ বাজাইতেছিল! হেরা কিন্তু মাগার সবার আগে কম্পু বানাইছিলো মাইন্ড ইট, তাই কন্ট্রোল+ সি কইরা কন্ট্রোল+ ভি মারতে কতক্ষন লাগে? পয়েন্টটা কিন্তু খেয়াল কইরা! (Mahmud Reza)
#
- ইসলামের ইতিহাসে আম্রিকা-টাম্রিকা কিছু নাই, আল্যাপাক আম্রিকা বানাইছে এইতো মাত্র ৩০০ বছর আগে! (Alal E Musa Shishir)
#
- আম্রিকায় যে সুর্য দেখা যায়, তাহা সুর্যেরই নিতম্ব। সুর্য যখন সেজদায় যায়, তখন সুর্যের নিতম্ব উঁচা হয়, আর তখন আম্রিকাবাসী সুর্যের নিতম্বকে দেখতে পায়। (আমি সত্যের পথে)

৫৬.
- ইসলামের আইন শরিয়া আইনে ধর্ষণ বলিয়া কিছু নাই কেন? (Tasnim Zuberia)
- কারণ ইসলাম নারীকে দিয়েছে সর্বোচ্চ স্থান ও সম্মান, তাই নারীর জন্য অসম্মানজনক এই শব্দ নাজায়েজ। (Mahmud Reza)

৫৭.
- ইনসানের সাথে সাথে জ্বিনেরাও জান্নাত ও জাহান্নামে যাবে। তাদের জন্য কি কোনো নবী-রাসূল পাঠানো হয়েছে? না-হলে তাদের শাস্তি কিংবা পুরস্কার দেয়ার যৌক্তিকতা কী? (ঔপপত্তিক ঐকপত্য)
- মাস্টার ক্লাসে পড়ায়নি ব’লে পরীক্ষা হবে না, এটা কেমন কথা! (Aboneel Aritro)

৫৮.
- শীত কালেই কেন দেশে ওয়াজ মাহফিল বেশী দেখি আমরা? আবার কী আজিব ব্যাপার, এই একই সময়ে দেশে যাত্রা-পালা আর ভ্যারাইটি শোর নামে কী সব অশালীন নগ্ন নারী ড্যান্সারদের আয় আয় মার্কা ব্যাপারস্যাপারও বেশি চলে। কারণ কী? (Allama Soytaan)
- প্রত্যেক ক্রিয়ারই একটি সমান ও বিপরীত প্রতিক্রিয়া আছে। (Shirin Sultana Boby)

৫৯.
- হুরের সংখ্যাটা ৭২ কেন? ৫০, ১০০ এই রকম পুর্ণ সংখ্যা হল না কেন? (Mahfuz Sazal)
- ইসলামের ৭২টা সেক্টের প্রতিটা সেক্ট থিকা একটা একটা কইরা হুরি নেয়া হইছে, যাতে কেউ মাইন্ড না খায়। (দাঁড়িপাল্লা ধমাধম)
#
- নবীজি ৭২-এর বেশি গুনতে পারতো না, তাই। (Tamanna Jhumu)
#
- ডজন হিসাবে। (মূর্খ চাষা)

৬০.
- ফরজ গোছল না করলে কী কী ব্যাঙগানিক ক্ষতি হয়? (অয়ো ময়)
- আরেক বিবি বুইজা ফালাইতে পারে যে, আফনে অন্য কোথাও কিছু ফেলেছেন! (Mahmud Reza)

আগের পর্বগুলো:

হোর কনটেস্ট, হুরী কনটেস্ট

বানিয়েছেন দাঁড়িপাল্লা ধমাধম

মিস ওয়ার্ল্ড ইজ এ হোর কনটেস্ট; ইসলামিক মিস ওয়ার্ল্ড ইজ এ হুরী কনটেস্ট।


নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁতভাঙা জবাব - ৪৩

লিখেছেন ওয়াশিকুর বাবু

আসুন, নাস্তিকদের কটূক্তির বিরুদ্ধে দাঁতভাঙা জবাব দেই...


কটূক্তি ৮৫:
নাস্তিকদের ছদ্মনাম ব্যাবহারে মুমিনদের আপত্তি কেন? নাম যা-ই হোক, ব্যক্তির লেখাই তো মূখ্য। ছদ্মনাম ব্যবহার করলে কি লেখার যৌক্তিকতা ক্ষুণ্ণ হয়?

দাঁতভাঙা জবাব:
নাস্তিকরা অনেক বড় বড় কথা বলে, অথচ প্রকাশ্যে নিজেদের পরিচয় দিতেই ভয় পায়। তারা নিজেদের সত্যবাদী মনে করলে আসল পরিচয়ে আসুক। আসলে নাস্তিকের আড়ালে সবাই ইসলামবিদ্বেষী হিন্দু, তাই ছদ্মনাম ব্যবহার করে।


কটূক্তি ৮৬:
প্রকাশ্যে কেউ নাস্তিকতার প্রচার করলে বা কোনো মুসলিম ইসলামত্যাগের ঘোষণা দিলে মুমিনরা কি মেনে নেবে?

দাঁত ভাঙা জবাব:
৯৭ ভাগ মুসলিমের দেশে প্রকাশ্যে নাস্তিকতার প্রচার কখনোই বরদাস্ত করা হবে না। কোনো নাস্তিক এই ঘোষণা দিলে তৌহিদি জনতা তাদের ঈমানি শক্তি দিয়ে প্রতিরোধ করবে। আর ইসলামত্যাগকারীকে অবশ্যই কতল করা হবে।

[বি.দ্র. কটূক্তির বদলে দাঁত ভাঙা জবাব গুলো আমার নয়। বিভিন্ন সময়ে ভার্চুয়াল মুমিনগণ যে জবাব দিয়েছেন তা কপি করে ছড়িয়ে দিচ্ছি শুধু। আপনারাও সবাই শেয়ার করে নাস্তিকদের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে জবাব দিন, ঈমান পোক্ত করুন...]