২০ জানুয়ারী, ২০১৫

ফাতেমা দেবীর ফতোয়া - ০৪

লিখেছেন ফাতেমা দেবী (সঃ)

১৬.
নবীজির কার্টুন আঁকলে তার ভেড়ার পাল উম্মতকুলের এত চুলকানি ওঠে কেন? তাদের চুলকানি কোথায় কোথায় ওঠে ও কেমন চুলকায়, একটু ভালোভাবে দেখতে চাই। নবীজির লুল লুল কার্টুন এঁকে টয়লেটের চারপাশে লাগিয়ে দেবো, কাবাঘরের চারপাশে লাগিয়ে দেবো, মন্দির-মসজিদ-প্যাগোডার চারপাশে লাগিয়ে দেবো, জুতায় নবীজির কার্টুন আঁকবো, মোজায় নবীজির কার্টুন আঁকবো, পাপোষে আঁকবো, কার্পেটে আঁকবো, ঘুড়িতে নবীজির কার্টুন এঁকে আকাশে ওড়াবো, ফুটপাতে তার কার্টুন আঁকবো, গাড়ির চাকায় আঁকবো, রাস্তায় নবীর কার্টুন এঁকে পায়ে মাড়াবো, পায়ের তালুতে আঁকবো, কাগজে নবীজির কার্টুন এঁকে টয়লেটে ফেলে ফ্লাশ করে দেবো। নবীজির ভেড়ার পাল তখন কী করিবেক?

১৭.
ইছলামে মদ হারাম। মহা-মদ কি তাইলে মহা-হারাম?

১৮. 
প্যারিসে নবীকে নিয়ে ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন আঁকায় অনেক মুছলমান ভাইলোক জিহাদী আন্দোলনের নামে প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে নিজেদেরকে একযোগে মহানবীজি ঘোষণা করেছে। এই সুবর্ণ সুযোগে নবী হয়ে যাওয়ার সৌভাগ্য হাতছাড়া করে কোনো মহা-আহাম্মক? প্ল্যাকার্ডে ওরা লিখেছে 'Je suis Muhammad' অর্থাৎ 'আমিই মুহাম্মদ'। 

নবীজির কার্টুন আঁকার বিরুদ্ধে প্রতিবাদের নামে দলে দলে ভণ্ড নবীজির আবির্ভাব হচ্ছে। হে লানতের মালিক আল্লা, আপনি কোথায়? এই সকল হুজুগে স্বঘোষিত নবীজিকুলের উপর আপনি অতি শীঘ্রই লানৎ বর্ষণ করুন। আমীন।

১৯.
য়াল্ল্যাপাক সর্বব্যাপী। তিনি কুকুরের মধ্যেও আছেন। কুকুর নাপাক। তাই য়াল্ল্যাপাকও নাপাক।

২০.
বাংলাদেশের এক সময়ের হট ও হিট নায়িকা শাবানা, ববিতা ও সুচন্দা জীবনসায়াহ্নে এসে নিজেদেরকে ময়লার মত বস্তাবন্দি করে ফেলেছেন। আমরা তাদের গার্বেজের বস্তার মত ছবি ফেসবুকে দেখে হিট খাই। এঁরা যৌবনে নিজেদের শরীর রূপ ও যৌবন জনগণকে দেখিয়ে আনন্দবোধ করেছেন, লোকজনকেও আনন্দ দিয়েছেন। এঁরা এখন যৌবনহীন, বৃদ্ধ। শরীর লোকজনকে দেখানোর মত নেই। তাই সময়-সুযোগ বুঝেই নিজেদেরকে এঁরা ময়লার মত বস্তায় ভরে ফেলেছেন।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন