১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৫

কিয়ামত

লিখেছেন নাস্তিক দস্যু

কিয়ামত - মুছুলমানদের কাছে অতি পরিচিত একটি শব্দ। এ শব্দটি শুনলেই কল্পনার চোখে ভেসে ওঠে ভয়ংকর সব চিত্র। আমরা কিয়ামত শব্দটি ব্যবহার করি বিপদ অর্থে। যেমন, "প্রস্তুতি না থাকায় আজকের পরীক্ষাটা দিতে গিয়ে আমার কিয়ামত হয়ে গিয়েছিল" ইত্যাদি।

কিন্তু আমরা এখন ভিন্নভাবে কিয়ামত শব্দটির সাথে পরিচিত হব।

কিয়ামত শব্দটির বাংলা অর্থ দণ্ডায়মান হওয়া। যে কোন কিছু দণ্ডায়মান হওয়া মানেই কিয়ামত হওয়া। এখানে কিয়ামত হওয়া মানে ঈমানদণ্ডের কিয়ামতকে বুঝানো হবে।

কিয়ামতের কারণ:

১. গনিমতের মাল সানি লিওন মার্কা হওয়া,
২. বেহেস্তের হুরীদের বর্ণনা শোনা,
৩. অনেকদিন বিবির সহবত হতে দূরে থাকা,
৪. শফী হুগুরের তেঁতুল তত্ত্ব শোনা,
৫. সুন্দরী মহিলাদের বাসায় খতমে কুরআনের বা খাওয়ার দাওয়াত পাওয়া 
এবং আরো অনেক।

কিয়ামতের আলামত:

কিয়ামতের আলামত শুধুমাত্র পুরুষদের ক্ষেত্রেই বুঝা যায়। মহিলাদের কিয়ামত হয় না, বিকজ তাদের ঈমানদণ্ড নাই। কিয়ামতের আলামত দুই প্রকার। 
১. আলামতে ছুগরা, 
২. আলামতে কুবরা।

আলামতে ছুগরা:
১. পায়জামার উপরের দিকে তাবু দেখা যাবে,
২. কিয়ামতপ্রাপ্ত ব্যক্তির পাঞ্জাবি বটিয়া থাকিলে তা তিনি টানিয়া দিবেন, যাতে করে কিয়ামত কম বুঝা যায়,
৩. কিয়ামতপ্রাপ্ত ব্যক্তির আশেপাশে মহিলা মুরীদ থাকিলে খুশি হন, তবে পুরুষ থাকিলে একটু কম খুশি হন।

আলামতে কুবরা:
১. কিয়ামাতপ্রাপ্ত ব্যক্তির পায়জামা ভিজিয়া যাইবে,
২. চোখ ঘোলাটে থাকিবে,
৩. নামাজ পড়ার আগে গোছল করতে চাইবে,
৪. খানিকক্ষণ মেজাজ খারাপ থাকিবে ইত্যাদি।

কিয়ামত হতে বাচার উপায়:

১. গৌতম বুদ্ধের আদর্শ গ্রহণ করা। 
২. খাদিজা ফাতেমা আয়েশাসহ সকল মুছলিম নারীকে আম্মা মনে করা। 
৩. উল্টাপাল্টা কিছু দেখিয়া ফেলিলে ঈমানদণ্ড স্পর্শ না করা। 
৪. ভুলেও জান্নাতের হুরীদের কথা চিন্তা না করা। 
৫. নারীদের চলাচলের সময় (বিশেষ করে হুগুরদের সামনে) "বোরখা" নামক মোবাইল জেলখানা ইউজ করতে বাধ্য করা ইত্যাদি।



আল্যাপাক আমাদের সকলকে কিয়ামত হতে দূরে থাকার তৌফিক দান করুন, আফীম।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন