২১ মার্চ, ২০১৫

ইসলামী ইতরামি

পাঠিয়েছেন নিলয় নীল

১.
আফগানিস্তানের কাবুলে গত বৃহস্পতিবারে এক মহিলাকে কোরআন পোড়ানোর অভিযোগে জ্যান্ত পুড়িয়ে মেরেছে সে দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। সেই মহিলা যে কোরআন পুড়িয়েছে, এমন প্রমাণ কেউ দেখাতে না পারলেও একজনমাত্র দাবি করেছে যে, সে নিজে তাকে কোরআন পোড়াতে দেখেছে। হাজার হাজার মানুষ এই হত্যাকাণ্ডে আনন্দের সহিত অংশগ্রহণ করে বলেই ভিডিওতে দেখা যায়। জানা গেছে, ৩২ বছর বয়সী ফারখুন্দা নামের সেই মহিলাটি ছিল পাগলী।

২.
২০১৬ সালের মধ্যে ৯০ ভাগ অ্যামেরিকানদের হত্যা করে অামেরিকায় ইসলাম প্রতিষ্ঠা করার পরিকল্পনা করছে আইএস।

৩.
বাংলাদেশের এক ইমাম আবারও বাংলাদেশের নাম উজ্জ্বল করলো দুবাইয়ে। ইমামকে রাখা হয়েছিলো ৮ বছরের এক ছেলেশিশুকে কোরআন শিক্ষা দেওয়ার জন্য। ছেলেশিশুটি অবশেষে আর না পেরে তার বাবাকে বলে দিলো, কীভাবে ঐ ছেলেশিশুর গুপ্তঅঙ্গ হাতড়াতো তার কোরআন শিক্ষক। বাবা জিজ্ঞেস করেছিলো, এবারই কি প্রথম এই কাজ করেছিলেন হুজুর? বাচ্চা ছেলেটি বলেছে, হুজুর এই কাজ প্রায়ই তার সাথে করতেন তাও কোরআন শিখানোর সময়েই। অবশেষে বাবা পুলিশের কাছে অভিযোগ করে। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ বাংলাদেশের সেই ইমামকে গ্রেফতার করে। মামলাটি দুবাইয়ের আদালতে গড়িয়েছে, আগামী ৩১ মার্চ আদালত রায় দিবে এই মামলার।

৪.
হোয়াটসঅ্যাপে প্রাইভেট মেসেজে যোগাযোগ করে একজন পুরুষকে অপদস্থ করার অভিযোগে এক মহিলাকে শাস্তি দিয়েছে সৌদি আরবের শরিয়া আদালত। নারীটিকে সহিহসম্মতভাবে ৭০ টা দোররা মারা হয় এবং ২০ হাজার সৌদি রিয়াল (৩ হাজার ৬০৪ ইউরো) জরিমানা করা হয়। পুরুষটির অভিযোগ ছিলো - নারীটি নাকি প্রথমে যৌন সুড়সুড়িমার্কা কথাবার্তা বলতো। একটা সময় পুরুষ তাতে সাড়া না দিলে তাকে অপমান অপদস্থ করে সেই সৌদি নারীটি

৫.
ঘটনা ভারতের জয়পুরে। ১১ বছরের নাজমিনকে ধর্ষণের পরে গায়ে আগুন লাগিয়ে দেয় তার চাচা সেলিম। নাজমিনের অপরাধ সে একটি গোঁড়া মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেও বিভিন্ন ধরণের উগ্র পোশাক (চাচার বয়ানে) এবং লিপিস্টিক পরিধান করতো যা ইসলামে হারাম। একাধিকবার নিষেধ করার পরেও এই অপরাধ করায় নাজমিনকে যৌন নির্যাতনের পরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। 

৬.
সকল স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে নারীদের সব ধরনের খেলাধুলাকে না বলেছেন সৌদি আরবের শিক্ষামন্ত্রী। 

৭.
আইএস ধ্বংস করলো ইরাকের ২০০০ বছরের পুরানো শহর হাট্রাকে। হাট্রা হলো পৃথিবীর অন্যতম প্রাচীন একটি শহর যা ইউনুস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হিসেবে স্বীকৃত। 

৮.
আইএসের কাছে কল্লা দাও বা ইসলাম গ্রহণ করো এই দুইটি পথের মধ্যে বুদ্ধিমান বিধর্মীরা ইসলাম গ্রহণ করবে, তাতে সন্দেহ নেই। অবশেষে লেবানিজ আরেকজন খ্রিষ্টান আইএসের কাছে ইসলামে দীক্ষিত হয়ে কল্লা বাচিয়েছেন। এভাবেই যুগে যুগে জয় হয়েছে ইসলামের।

৯.
মার্স ভাইরাস প্রতিরোধে উটের মূত্র জনপ্রিয় হচ্ছে রেলিজিয়ন অফ piss এর অনুসারিদের মধ্যে। উটের মূত্র খাচ্ছে তারা এই মহামারী ভাইরাস প্রতিরোধে। 

১০.
কত্তো বড় সাহস, মুসলমান মহিলা হইয়া কুত্তা নিয়া ছবি তুলে মুসলমানদের অনুভূতিতে আঘাত দেয়। মালয়েশিয়ার মুসলমানবতাবাদী লিঙ্গ অনুভূতিতে দাড়িয়ে গেছে, মেয়েটির কঠিন শাস্তি দাবি করছে এরকম হারাম কাজ করার জন্য। 

১১.
ঘটনা সেন্ট্রাল আফ্রিকার রিপাবলিক অফ চাঁদে, কচি কচি শরণার্থী ছেলেমেয়েগুলোকে বেত্রাঘাত করা হচ্ছে কোরআন ঠিক মতো উচ্চারণ করে না পড়া, জোরে জোরে না পড়া এবং সুরারোপ করে না পড়ার জন্য। 

১২.
শান্তির ধর্মের অনুসারী জর্জিয়ান এক ভাই তার বোনকে ছুরিকাহত করছে। বোনের অপরাধ - বোন ঠিক মতো হিজাব পড়ে নি
 http://dfwatch.net/georgian-man-stabs-sister-for-not-wearing-hijab-88277-31434

১৩.
সমকামী হবার অপরাধে ইসলামী রীতি অনুযায়ী উঁচু দালান থেকে ছুঁড়ে ফেলে হত্যা করেছে একজনকে আইএস। আর এই ব্যতিক্রমী হত্যাকাণ্ড দেখার জন্য হাজার হাজার মডারেট মুসলমান নিচে অপেক্ষা করছিলো।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন