১৮ জুলাই, ২০১৫

ঈদের খুশির ইছলামী বারতা

প্রতি বছর ঈদের মোনাজাতে প্রায় অনিবার্যভাবে মুছলিম উম্মাহর শান্তি কামনা করে মোনাজাত করা হয়। এবারের ঈদে সেই মোনাজাতের প্রভাব কতোটা পড়েছে, দেখা যাক। সঙ্গে আরও কিছু সংবাদ।

১.
ইরাকে ঈদের দিন ইছলামী হামলায় শতাধিক নিহত। ছহীহ ইছলামী জঙ্গিদল আইসিস দায় নিয়েছে এই হামলার। 

২.
ঈদের নামাজে আত্মঘাতী হামলায় নিহত হয়েছে ৬৪ জন। আইসিস অবশ্য ঈদের নামাজ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিল আগেই। 

৩.
ঈদের নামাজ সেরেই ভারতের শান্তিকামী মুছলিমরা পাথর ছোঁড়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে, ওড়ায় আইসিস-এর পতাকা।

৪.
বাংলাদেশে ঈদের দিন কোনও অঘটন ঘটেনি। ঈদ উপলক্ষে দেশের সব ঈদের মাঠে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছিল। ৯০ শতাংশ মুছলিমের দেশে ঈদের নামাজে "সর্বোচ্চ নিরাপত্তা" ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হয় - এতেই ইছলামের খাছ চরিত্র প্রকট হয়ে ওঠে। 

৫.
১০ বছর বয়সী শিশুর পক্ষে শিরশ্ছেদের মতো বর্বর কাজ অসম্ভব বলেই মনে হয়। তবে এমন অসম্ভবকে সম্ভব করে তোলাই ধর্মের কাজ। ঈদের ঠিক আগে আইসিস একটি ভিডিও ছেড়েছে, যেখানে দেখা যাচ্ছে, আইসিস কর্তৃক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এক শিশু, যার বয়স ১০-এর বেশি নয়, নিজ হাতে এক সেনা অফিসারের মাথা শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেললো।

৬.
বিষ খেয়ে মরা - নবীজির সুন্নত। ৪৫ জন আইসিস যোদ্ধার মৃত্যু হয়েছে বিষ মেশানো ইফতার খেয়ে।

৭.
ইছলামে দাসীসম্ভোগ হালাল, তবে পুরুষ-নারীর করমর্দন হারাম। ইরানে ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন এঁকে ১২ বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত মহিলার বিরুদ্ধে নতুন অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। তাঁর অপরাধ - তিনি তাঁর পুরুষ-আইনজীবীর সঙ্গে করমর্দন করেছিলেন।

৮.
ভারতের অভ্যন্তরে বাংলাদেশী ছিটমহলের ১৪ হাজার ২১৫ জনের একজনও বাংলাদেশী হতে রাজি হয়নি। জানতে মঞ্চায়, এদের মধ্যে কি আদৌ কোনও মুছলিম নেই? মুছলিমরা কেন ৯০ শতাংশ মুছলিমের দেশে থাকতে রাজি হচ্ছে না?

৯.
নবীজিরে, খুব সম্ভব, কখনও কুত্তায় কামড়াইসিল বা বা তাড়া দিসিলো, এবং, মনে হয়, এই কারণেই সে কুকুরের মতো নিরীহ ও বিশ্বস্ত প্রাণীকে অপবিত্র ঘোষণা করেছে। তার অনুসারীদের অনেকের মধ্যেই তাই কুকুরবিদ্বেষ আছে। কুকুরের প্রতি নিষ্ঠুরতার পেছনে এই ধর্মীয় বিধান অন্যতম প্রধান একটি কারণ। বাংলাদেশের ঘটনা

১০.
ব্রিটেনের জনসংখ্যার শতকরা ৫৬ জন মনে করে, মুছলিমরা গণতন্ত্রের জন্য হুমকি

১১.
মুছলিমের কাপ থেকে পানি খাবার অপরাধে এক খ্রিষ্টান মহিলাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে ফাকিস্তানে। তবে তাঁকে মুক্তি দেয়া হলেও তাঁর প্রাণনাশের আশঙ্কা থেকেই যাবে, কারণ তাঁকে হত্যার জন্য পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে ইতোমধ্যে।

১২.

১৩. 
ইছলামীরা থাইল্যান্ডে বোমা হামলা করে হত্যা করেছে ৬ জনকে

১৪.
শত শত লোকের হত্যাকারী আইসিস-যোদ্ধা বলেছে, "আমি কসাই নই... এটা জিহাদের অংশ।"

১৫.
সুরা মুহাম্মদ-এর ৪ নম্বর আয়াতে বলা আছে: "অতঃপর যখন তোমরা কাফেরদের সাথে যুদ্ধে অবতীর্ণ হও, তখন তাদের গর্দান মার।" অতএব ধর্মান্তরিত হয়ে মুছলিম জিহাদী বনে যাওয়া এক মহিলা বলতেই পারে, "আমরা যখন কারুর শিরশ্ছেদ করি, এর অর্থ - আমরা স্রেফ শরিয়া আইন মেনে চলি।"

১৬.
ইতালিতে রমজান মাসে "আল্যাহু আকবার" ধ্বনি তুলে এক পর্যটক মহিলার গলায় ছুরি ধরেছিল এক মুছলিম।

১৭.
পবিত্র রমজানে সংযম পালনের মাসটিতে ইছলামীরা সর্বমোট ২৯৮৮ জনকে হত্যা করেছে অর্থাৎ দিনে গড়ে ১০০ জনকে।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন