২৩ অক্টোবর, ২০১৫

খেলা ভাঙার খেলা

লিখেছেন শহীদুজ্জামান সরকার

ধর্ম হচ্ছে যার যার পুতুল, খেলা সবার।
তবে খেলা শেষে এক দল পুতুলকে গুঁড়িয়ে দেয়।
আরেক দল পুতুল গুঁড়িয়ে দেয় খেলা শেষ হওয়ার আগেই।
এদের মধ্যে প্রথম দলটা বোকা আর অন্ধ; এদের আচরণ শিশুসুলভ।
ছোটকালে বাচ্চারা যেমন খেলাঘর গড়ে আবার ভাঙে, তেমনটা।
এই খেলাটার কোনো মানে নেই, ভাঙা আর গড়ার খেলার ধারা চলে আসছে।
তবে দ্বিতীয় যে দলটা, এরা বর্বর; এই বোকা শিশুদের খেলতে দেয় না শান্তিমত।
এরা ভেঙে ফেলে বাচ্চাদের তৈরি পুতুলগুলো।
শুধু যে এই বাচ্চাগুলোই বোকা তা নয়, এই পুতুল-ভাঙা বর্বরগুলোও চরম বোকা।
এরাও এই শিশুদের মত লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে একটা পাথরের দেয়ালে ঢিল ছুঁড়তে যায়, পাথরের চারপাশে অন্ধের মত সাত পাক ঘোরে, তারপর এই পাহাড় আর ওই পাহাড়ে দৌড়াদৌড়ি করতে থাকে।
শুধুই কি এসব? আরও অনেক হাস্যকর কাজ-কারবার করে।
এই কাজগুলো বাধা দেয়া তো দূরের কথা, এগুলো যে বোকামী - সে কথা বললেই এরা কল্লা ফেলে দেয়।

বলেছিলাম এরা বর্বর।
তবে প্রথম শিশুদের পুতুলগুলো যখন ভাঙা হয়, তখন এরা প্রতিজ্ঞা করে দ্বিতীয় পক্ষের ওই দেয়াল নামের বড় পুতুলটা ভেঙে ফেলবে একদিন।
শিশুরাও একদিন বড় হবে, এরাও বিপক্ষ দলের পুতুল ভাঙবেই।
এভাবেই চলবে ভাঙাভাঙি।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন