২৭ ডিসেম্বর, ২০১৬

উম হানি ও মুহাম্মদ: ইসলামের মহানবীর প্রথম ভালবাসা (পর্ব ৩)

লিখেছেন আবুল কাশেম


মুহাম্মদ কেন আরবদের মাঝে ব্যতিক্রম হবেন?

এদিকে ইসলামের বিশিষ্ট ঐতিহাসিক তাবারি লিখেছেন, মুহাম্মদ উম হানিকে বিবাহের প্রস্তাব দেন, কিন্তু উম হানি তা গ্রহণ করলেন না, কারণ উম হানির সাথে তাঁর শিশু ছিল (খণ্ড ৯, পৃঃ ১৪০)। 

এই দুই ঘটনা কিছুটা পরস্পরবিরোধী হলেও আমরা অনুমান করতে পারি যে, নবী উম হানিকে হয়ত দু’বার বিবাহের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। প্রথমবার উম হানির পিতা আবু তালেবের কাছে। সেই সময় মুহাম্মদ নিজেকে নবী বলে ঘোষণা দেননি; অর্থাৎ মুহাম্মদের বয়স অল্প ছিল, খুব সম্ভবত কুড়ি কিংবা বাইশ। দ্বিতীয় বার উম হানিকে প্রস্তাব দেন আবু তালেবের মৃত্যুর পর, উম হানির স্বামী যখন নিখোঁজ হয়ে যান (অনেকে, যেমন ওপরে রডিন্সন, লিখেছেন মারা যান) অথবা মুহাম্মদের প্রথম স্ত্রী খাদিজার মৃত্যুর পর। মুহাম্মদ নিজেকে নবী বলে ঘোষণা দেন, যার ফলে সমগ্র কুরাইশদের বিরাগভাজন হন। এই সময় মুহাম্মদের বয়স সম্ভবত ৫০ অথবা ৫১ হবে। কারণ খাদিজা এবং আবু তালেব মারা যাবার অল্প কিছু সময়ের মাঝেই মুহাম্মদ বিধবা সওদাকে বিবাহ করেন আর আবু বকরকে প্রস্তাব দেন তাঁর কন্যা আয়েশাকে বিবাহ করার। সামান্য সময়ের ব্যবধানেই মুহাম্মদ ছয় বছরের শিশু আয়েশাকে বিবাহ করেন।

অনুমান করা যায়, মুহাম্মদের এই দুই বিবাহের ব্যাপারে উম হানি জ্ঞাত ছিলেন। তাই মুহাম্মদ উম হানিকে বিবাহের প্রস্তাব দিলে উম হানি আরেক এক সতীন হতে চাইলেন না। উম হানি স্বামী-ছাড়া, এক সন্তানের মা হয়ে একা থাকা পছন্দ করলেন। কিন্তু মুহাম্মদের সাথে সম্পর্ক চালিয়ে যেতে কুণ্ঠিত হলেন না। তার প্রমাণ আমরা দেখব নিচের অংশগুলিতে।

খাদিজা মারা যাবার পর, উম হানিকে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ না করতে পারলেও মুহাম্মদ হাল ছেড়ে দিলেন না। আল্লাহ নবীর সাহায্যে দ্রুত এগিয়ে আসলেন। আল্লা পাঠিয়ে দিলেন আয়াত ৩৩:৫০, যে-আয়াতে নবীকে বলা হল, তিনি ইচ্ছে করলেই তাঁর যে কোনো চাচাত, ফুফাতো, মামাতো, খালাতো বোনদের সাথে যৌনকর্মে লিপ্ত হতে পারবেন বিবাহ ছাড়াই—শুধু এই হবে যে, ঐ বোনদেরকে মদিনায় হিজরত করতে হবে। কিন্তু নবী অত বোকা ছিলেন না। তিনি জানতেন, এই আয়াতের প্রতিফল কী হবে তাঁর অনুসারীদের মাঝে। তাই আল্লা তাঁকে জানিয়ে দিলেন যে, এই অতি-নিকট আত্মীয়দের সাথে বিবাহ বহির্ভূত যৌনলীলার অনুমতি শুধুমাত্র নবীর জন্যই বহাল থাকবে, অন্য মুসলিমদের জন্য নয়।

আমরা আয়াত ৩৩:৫০ পড়ে নিই।
হে নবী। আপনার জন্য আপনার স্ত্রীগণকে হালাল করেছি, যাদেরকে আপনি মোহরানা প্রদান করেন। আর দাসীদেরকে হালাল করেছি, যাদেরকে আল্লাহ্‌ আপনার করায়ত্ত করে দেন এবং বিবাহের জন্য বৈধ করেছি আপনার চাচাতো ভগ্নি, ফুফাতো ভগ্নি, মামাতো ভগ্নি ও খালাতো ভগ্নিকে যারা আপনার সাথে হিজরত করেছে। কোন মুমিন নারী যদি নিজেকে নবীর কাছে সমর্পণ করে, নবী তাকে বিবাহ করতে চাইলে সে—ও হালাল। এটা বিশেষ করে আপনারই জন্য—অন্য মুমিনদের জন্য নয়। আপনার অসুবিধা দূরীকরণের উদ্দেশে। মুমিনগণের স্ত্রী ও দাসীদের ব্যাপারে যা নির্ধারিত করেছি আমার জানা আছে। আল্লাহ্‌ ক্ষমাশীল, দয়ালু। (অনুবাদ: মাওলানা মুহিউদ্দিন খান, তাফসীর মাআরেফুল কোরআন)
এই বাংলা অনুবাদে যে কারচুপি আছে, তা পরিষ্কার হয়, যখন ইংরাজি অনুবাদ দেখা যায়। আল্লাহ তো সব মুসলিমদের জন্যই তাদের চাচাত, ফুফাতো, খালাতো, মামাতো বোনদের বিবাহ হালাল করেছেন। কাজেই এই আয়াতে নতুনত্বের কী আছে? দেখা যাক ইংরাজি অনুবাদ:

033.050
YUSUFALI: O Prophet! We have made lawful to thee thy wives to whom thou hast paid their dowers; and those whom thy right hand possesses out of the prisoners of war whom Allah has assigned to thee; and daughters of thy paternal uncles and aunts, and daughters of thy maternal uncles and aunts, who migrated (from Makka) with thee; and any believing woman who dedicates her soul to the Prophet if the Prophet wishes to wed her;- this only for thee, and not for the Believers (at large); We know what We have appointed for them as to their wives and the captives whom their right hands possess;- in order that there should be no difficulty for thee. And Allah is Oft-Forgiving, Most Merciful.
Hilali and Khan
33:50. O Prophet (Muhammad)! Verily, We have made lawful to you your wives, to whom you have paid their Mahr (bridal money given by the husband to his wife at the time of marriage), and those (captives or slaves) whom your right hand possesses whom Allâh has given to you, and the daughters of your ‘Amm (paternal uncles) and the daughters of your ‘Ammah (paternal aunts) and the daughters of your Khâl (maternal uncles) and the daughters of your Khâlah (maternal aunts) who migrated (from Makkah) with you, and a believing woman if she offers herself to the Prophet, and the Prophet wishes to marry her; a privilege for you only, not for the (rest of) the believers. Indeed We know what We have enjoined upon them about their wives and those (captives or slaves) whom their right hands possess, – in order that there should be no difficulty on you. And Allâh is Ever Oft¬Forgiving, Most Merciful.
আয়াত ৩৩:৫০ সম্পর্কে ইবনে কাসীর লিখেছেন:
মহান আল্লাহ বলেন: যারা তোমার সাথে দেশ ত্যাগ করেছে। হযরত উম্মে হানি (রাঃ) বলেন: “আমার কাছে রাসূলুল্লাহ (সঃ)-এর পয়গাম এলো। আমি আমার অপরাগতা প্রকাশ করলাম। তিনি তা মেনে নিলেন। অতঃপর আল্লাহ তা’আলা এই আয়াতটি নাযিল করলেন। আমি তাঁর জন্য বৈধকৃত স্ত্রীদের মধ্যেও ছিলাম না এবং তাঁর সাথে হিজরতকারিদের অন্তর্ভূক্তও না। বরং আমি মক্কা বিজয়ের পর ঈমান এনেছিলাম। আমি ছিলাম আযাদকৃতদের অন্তর্ভূক্ত।” তাফসীর কারকগণও একথাই বলেছেন। আসল কথা হল যারা মদীনায় রাসূলুল্লাহ (সঃ)-এর সাথে হিজরত করেছেন। হযরত ইবনে মাসউদ (রাঃ) এর কিরআতে রয়েছে।
এরপর মহামহিমাম্বিত আল্লাহ বলেছেনঃ কোন মুমিনা নারী নবী (সঃ)-এর নিকট নিজেকে নিবেদন করলে এবং নবী (সঃ) তাকে বিয়ে করতে চাইলে সেও বৈধ। এ আদেশ দু’টি শর্তের উপর প্রযোজ্য হবে। অর্থাৎ হে নবী (সঃ)! মুমিনা নারী তোমার জন্য বৈধ যদি সে নিজেকে তোমার নিকট নিবেদন করে যে, তুমি ইচ্ছা করলে তাকে বিনা মহরে বিয়ে করতে পার। (তাফসীর ইবনে কাসীর, পঞ্চদশ খণ্ড, অনুবাদ ডঃ মুহাম্মদ মুজীবুর রহমান, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, ঢাকা থেকে প্রকাশিত, পৃঃ ৮২৯)
এবার আমরা তিরমিজি শরীফ থেকে একটা হাদীস পড়ব:
উম হানি বিন্‌ত আবু তালেব বর্ণনা করলেন: “আল্লাহর রসুল আমাকে বিবাহের প্রস্তাব দিলেন। কিন্তু আমি তাঁর কাছে মাফ চাইলাম। তিনিও আমাকে আর পীড়াপীড়ি করলেন না। এরপর আল্লাহ (সর্ব্বোচ্চ) নাজেল করলেন (৩৩:৫০) [এইখানে পাঠকেরা উপরে উদ্ধৃত আয়াতটা পড়ে নিতে পারেন]। তিনি (উম হানি) বললেন: ‘এটা এই জন্য যে, আমি তাঁর জন্য আইনসঙ্গত ছিলাম না, কারণ আমি হিজরত করিনি। আমি তুলাকাদের মধ্যে একজন ছিলাম’।
[পাদটীকা ২) তুলাকার অর্থ হল ঐসব ব্যক্তি, যারা মক্কা বিজয়ের পর ইসলাম গ্রহণ করেছিল] (জামি আত তিরমিজি, খণ্ড ৫, হাদিস নম্বর ৩২১৪, পৃঃ ৫২২; অনুবাদ লেখকের)

এই আয়াতের পরিস্থিতি সম্পর্কে আমরা নিম্নলিখিত ধারণা করতে পারি।

খাদিজা মারা যাবার পর উম হানিকে মুহাম্মদ বিবাহের প্রস্তাব দিলেন। উম হানি তা নাকচ করে দিলেন। মুহাম্মদ বিবাহ করলেন সওদাকে আর বাগদত্ত হয়ে থাকলেন আবু বকরের ছয় বছর বয়সের শিশু কন্যা আয়েশার সাথে। এরপর মুহাম্মদ মদিনায় হিজরতের আয়োজন করলেন। চাইলেন উম হানিকে সাথে নিতে। তাই উম হানিকে আবার প্রস্তাব দিলেন বিবাহের। উম হানি রাজি হলেন না, হয়ত উম হানি চাননি সতিনদের সাথে মুহাম্মদের সংসারে ঢুকতে। আল্লাহ পাঠিয়ে দিলেন আয়াত ৩৩:৫০। মুহাম্মদ উম হানিকে জানালেন, আল্লাহ তাঁকে অনুমতি দিয়েছেন যে, চাচাত (অথবা ফুফাতো, মামাত, খালাত) বোন যে-ই তাঁর সাথে হিজরত করবে, তাকেই নবী বিবাহ করতে পারবেন। উম হানি বললেন যে, তিনি হিজরতে যাবেন না। তাই মুহাম্মদের স্ত্রী হতে পারবেন না।

মুহাম্মদ এবার আর এক কৌশল করলেন। আল্লাহ পাঠিয়ে দিলেন আয়াত ৩৩:৫০-এর বাকি অংশটুকু। মুহাম্মদ উম হানিকে জানালেন যে, হিজরত না করলেও অসুবিধা নাই, কারণ আল্লাহ্‌ বলেছেন যে, কোনো মুসলিম নারী যদি নিজের ইচ্ছায় মুহাম্মদের সঙ্গ পেতে চায়, মুহাম্মদ তাকে নিতে পারবেন। তার জন্য কোনো দেনমোহর দিতে হবে না। কিন্তু উম হানি মুসলিম হতে চাইলেন না। তাই অগত্যা মুহাম্মদকে উম হানি ছাড়াই মদিনায় হিজরত করতে হল।

এখানে স্মরণ রাখা দরকার যে, বরপক্ষ কনেকে দেনমোহর না দিলে অথবা তার প্রতিজ্ঞা না করলে কোনো বিবাহই ইসলামী আইন অনুযায়ী ন্যায়সঙ্গত নয়। তাই বুঝতে অসুবিধা হয় না যে, উম হানি যখন মুহাম্মদের কোন প্রস্তাবেই রাজি হলেন না, তখন মুহাম্মদ এই ফাঁদ পাতলেন, অর্থাৎ উম হানিকে ইসলামী বিবাহ ছাড়াই তাঁর হেরেমে নিতে পারবেন।

এই প্রসঙ্গে মুহাম্মদের ফুফাতো বোন যয়নব বিন্‌ত জাহশের কথা উল্লেখ করা যায়। যয়নবের সাথে বিবাহ হয়েছিল মুহাম্মদের পালিত পুত্র যায়েদের সাথে। কিন্তু মুহাম্মদ যয়নবের রূপ দেখে তাকে বিবাহ করতে চাইলেন। যায়েদ যয়নবকে তালাক দিয়ে দিলে মুহাম্মদ যয়নবকে বিছানায় টেনে নিলেন—আরবেরা এই সম্পর্ককে ঢি ঢি করতে শুরু করলে মুহাম্মদ প্রচার করতে লাগলেন, এই বিবাহে আল্লাহর অনুমতি আছে – আল্লাহ-পাক তাঁদের বিবাহ দিয়ে দিয়েছেন। যয়নব নবীর সাথে মদিনায় হিজরত করেছিলেন। তাই দেখা যাচ্ছে, মুহাম্মদ আয়াত ৩৩:৫০ ঠিক মতই প্রয়োগ করে নিয়েছিলেন।

কিন্তু মদিনা চলে গেলেও এবং অগুনতি স্ত্রী ও যৌন দাসী থাকা সত্ত্বেও নবী তাঁর বাল্য-প্রেম ভোলেননি। উম হানির সাথে নবীর প্রেম যে তাঁর প্রথম প্রেম ছিল, তাতে আমাদের সন্দেহ থাকে না। সেই প্রথম প্রেমকে নবী কোনোদিনই তাঁর হৃদয় থেকে বিতাড়িত করতে পারলেন না।

মক্কায় অবস্থানকালে এবং খাদিজাকে বিবাহ করার আগে মুহাম্মদ কীভাবে উম হানির সাথে মিলিত হতেন? নিচের কিছু হাদিস পড়লে অনুমান করা যায় যে, উম হানির গৃহে মুহাম্মদ প্রায়ই যাতায়াত করতেন।

এ ব্যাপারে দেখা যাক কয়েকটি হাদিস।
উম হানি বর্ণনা করলেন: “আমি নবীর সান্নিধ্যে বসে ছিলাম। এই সময় কেউ পানীয় কিছু নিয়ে আসল। তিনি তা পান করলেন। তারপর আমাকে পান করতে বললেন। আমি পান করলাম। তারপর আমি বললাম: ‘আমি সত্যই পাপ করছি। আমার জন্য আপনি ক্ষমা প্রার্থনা করুন’। নবী বললেন: ‘কী হয়েছে?’ আমি বললাম, ‘আমি যে রোজা (উপবাস) ছিলাম। এখন আমি তা ভেঙ্গে ফেলেছি।’ তিনি বললেন: ‘তুমি কী এমন রোজা রেখেছ, যা ভেঙে ফেললে আবার রাখতে হবে?’ আমি বললাম: ‘না’। তিনি বললেন: ‘তাহলে তোমার কোনো ক্ষতি নেই’ (জাইফ) । (জামি আত তিরমিজি, খণ্ড ২, হাদিস নম্বর ৭৩১, পৃঃ ১৭২; অনুবাদ লেখকের)
সিমাক বিন হার্‌ব বর্ণনা করলেন: “উম হানির এক সন্তান আমাকে বলল—আর সে ছিল সর্বাপেক্ষা ধার্মিক ব্যক্তি। তার নাম ছিল জা’দাহ্‌। উম হানি ছিলেন ঐ ব্যক্তির দাদীমা। সে তার দাদীমার কাছ থেকে শুনেছিল যে, আল্লার রসূল তাঁর (উম হানির) কাছে আসলেন এবং কিছু পানীয় চাইলেন। তিনি তা পান করলেন। তারপর তিনি সেই পানীয় উম হানিকে দিলেন। উম হানি তা পান করলেন। উম হানি বললেন: ‘হে আল্লাহর রসূল! আমি যে রোজা ছিলাম। তখন রসূলুল্লাহ বললেন: “নফল (ঐচ্ছিক) রোজা নির্ভর করে রোজদারের উপর। সে চাইলে রোজাটা পূর্ণ করতে পারে, চাইলে ভাঙতে পারে।” শুবাহ্‌ (আরেকজন বর্ণনাকারী) বললেন: ‘আমি তাকে (জা’দাহকে ) জিজ্ঞাসা করলাম: ‘তুমি কি এটা উম হানির কাছ থেকে শুনেছ?’ সে উত্তর দিল: ‘না। আবু সালেহ্‌ এবং আমাদের পরিবারের সদস্যরা আমাকে এই ব্যাপারটা জানিয়েছেন।’ (জাইফ) (জামি আত তিরমিজি, খণ্ড ৫, হাদিস নম্বর ৭৩২, পৃঃ ১৭৩; অনুবাদ লেখকের)
উম হানি বিন্‌তি আবু তালেব বর্ণনা করলেন: “আল্লার রসূল আমার ঘরে আসলেন এবং জিজ্ঞাসা করলেন, ‘তোমার কাছে কি কিছু আছে?’ আমি বললাম, ‘না, শুধুমাত্র এক টুকরো শক্ত রুটি আর সির্কা ছাড়া।’ তিনি উত্তর দিলেন: ‘তাই নিয়ে এস, কারণ যে গৃহে সির্কা থাকে, সেই গৃহে মসল্লার অভাব থাকে না।’ (হাসান) (জামি আত তিরমিজি, খণ্ড ৩, হাদিস নম্বর ১৮৪১, পৃঃ ৫৩৩; অনুবাদ লেখকের)
এই সব হাদিস থেকে অনুমান করা যেতে পারে উম হানির সাথে নবী প্রায়ই মিলিত হতেন, একান্ত নিভৃতে। এই সব ঘটনা খুব সম্ভবত: নবীর মদিনায় হিজরতের আগেই ঘটেছিল। ধরা যেতে পারে, উম হানি হয়ত নবীর কাছাকাছি কোথায় থাকতেন। এমনও হতে পারে যে, উম হানি গোপনে ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন। উম হানি যে নবীর খুব সান্নিধ্যে থাকতেন তাও কয়েকটা হাদিস থেকে বোঝা যায়।
ইবনে মাজা ও বায়হাকী রেওয়ায়েত করেন যে, উম্মে হানি (রাঃ) বলেছেন—নবী করীম (সাঃ) কা’বার প্রাঙ্গণে রাতে যে কেরাত পাঠ করতেন, তা আমি আপন গৃহে শুয়ে শুনতে পেতাম। (খাসায়েসুল কুবরা, খণ্ড ১, পৃঃ ১২৫)
আর এই হাদিস:
তায়ালাসী, ইবনে সা’দ তিবরানী ও ইবনে আসাকিরের রেওয়ায়েতে হযরত উম্মে হানি (রাঃ) বলেন: আমি নবী করীম (সাঃ)-এর পেটের দিকে তাকালে মনে হত যেন উপরে নীচে সাদা কাগজ জড়িয়ে আছে। (খাসায়েসুল কুবরা, খণ্ড ১, পৃঃ ১৩১)
এখানে বলা অপ্রাসঙ্গিক হবে না যে, শুধু উম হানিই নয়, অন্য এক বিবাহিতা মহিলার সাথেও নবীর বেশ সখ্যতা ছিল। সেটা নিচের হাদিস থেকে জানা যায়।
যায়দ ইবনে আলী ইবনে হুসায়ন রেওয়ায়েত করেন: নবুওয়তপ্রাপ্তির পর রসূলুল্লাহ (সাঃ) হালাল নয়—এমন কোন মহিলার কোলে আপন মস্তক রাখেননি; কিন্তু আব্বাস পত্নী উম্মুল ফযলের কোলে তিনি মস্তক রেখেছেন। উম্মুল ফযল তাঁর মাথায় উকুন তালাশ করতেন এবং চোখে সুরমা লাগাতেন। একদিন তিনি যখন সুরমা লাগাচ্ছিলেন, তখন তাঁর চোখ থেকে এক ফোঁটা অশ্রু রসূলুল্লাহর (সাঃ) গণ্ডদেশে পতিত হল। হুযুর (সাঃ) জিজ্ঞেস করলেন: তোমার কি হল? উম্মুল ফযল বললেন: আল্লাহ তা”আলা আপনার ওফাতের খবর আমাদের দিয়েছেন। আপনার পরে কে আপনার স্থলাভিষিক্ত হবে—একথা বলে গেলে ভাল হত। হুযুর (সাঃ) বললেন: আমার পর তোমরা নিগৃহিত ও অবহেলিত বিবেচিত হবে। (খাসায়েসুল কুবরা, খণ্ড ২, পৃঃ ১৫৪)
বলা বাহুল্য, শরিয়া আইন অনুযায়ী এই ধরনের আচরণ একবারেই বেআইনী। দেখা যাচ্ছে, মুহাম্মদ নিজের রচিত আইনকে থোড়াই পাত্তা দিতেন।

মদিনায় গিয়ে নবী লুটতরাজ, ডাকাতি ও জিহাদে মনোনিবেশ করলেন। কিন্তু উম হানিকে ভুললেন না। যখন লুটের মাল ভাগ হত, নবী উম হানিকে কিছু ভাগ দিয়ে দিতেন। ওয়াকেদি লিখেছেন যে, মুহাম্মদ খায়বারের লুটের মালের কিছু অংশ উম হানিকে দিয়েছিলেন। এখানে বলা প্রয়োজন, খায়বার ছিল মদিনার ইহুদিদের এক বিশাল বাসস্থল। মদিনার শস্যভাণ্ডার এই খায়বার ইহুদিদের হাতেই ছিল। নবী অতর্কিতে খায়বার আক্রমণ করে প্রচুর খাদ্যশস্য পেয়ে যান, যা তিনি তাঁর নিকটাত্মীয়দের মাঝে বিতরণ করেন।

আল ওয়াকেদি লিখেছেন:
খায়বার লুটের পর মুহাম্মদ আশি ওয়াসাক খেজুর এবং বিশ ওয়াসাক যব দিলেন তাঁর প্রত্যেক স্ত্রীকে। এ ছাড়াও নবী উম হানি বিন্‌ত আবু তালেবকে দিলেন তিরিশ ওয়াসাক যব [তিনশত কিলোগ্রামের কিছু বেশী]। (আল ওয়াকেদী, পৃঃ ৩৪২)
অনুমান করা যায়, উম হানি বেশ কষ্টের সাথে সংসার চালাতেন। তাই মুহাম্মদ প্রেরিত এই সাহায্যের প্রয়োজন ছিল। উম হানির স্বামী যে তাঁর সাথে থাকতেন না, এও তার প্রমাণ হতে পারে।

উম হানি যে নবীর দেহের খুব সন্নিকটে থাকতেন, তা বোঝা যায় উম হানি যখন নবীর দেহের বর্ণনা দেন, বিশেষত্ব দেখা যায় উম হানি নবীর পেটের চামড়ার ধরন খুব ভালভাবে জানতেন। উম হানি ছাড়া নবীর এইরূপ উলঙ্গ দেহের এই বর্ণনা আর কারও কাছ থেকে পাওয়া যায় না—এমনকি নবীর অগুনতি স্ত্রীর কাছ থেকেও নয়।
উম হানি বলতেন, “আমি আল্লাহর রসুলের চাইতে সুন্দর হাসি আর কারও মুখে দেখি নাই। আর আমি যখনই আল্লাহর রসূলের পেট দেখতাম তখনই আমার মনে পড়ে যেত। [এই খানে কিতাব আল মাগহাযির ইংরাজি অনুবাদক ব্র্যাকেটে লিখেছেন: উম হানি এখানে নবীর ত্বকের ভাঁজের কথা বলছেন—অর্থাৎ নগ্ন পেটের] আমি মক্কা বিজয়ের দিনে উনার মাথায় চারটি বেণী বাঁধা দেখেছি। (আল ওয়াকেদী, পৃঃ ৪২৭)
(চলবে)

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন