৫ মার্চ, ২০১৭

নিমো হুজুরের খুতবা - ৩১

লিখেছেন নীল নিমো

ডেনমার্কে তুষারপাত হচ্ছে। আমি বাসে করে মসজিদে যাচ্ছিলাম।

বাসের ভিতরে দুই নাস্তিকের সাথে দেখা হয়ে গেল। আমি তাড়াতাড়ি "প্যারাসিটামল সাজিদ" খুলে নাস্তিকদের প্রশ্ন করলাম:
- বিজ্ঞান পরিবর্তনশীল। বিজ্ঞান তার নিজের উপরেই বিশ্বাস করতে পারছে না। তাহলে বিজ্ঞানকে কীভাবে মানুষ বিশ্বাস করবে? অথচ কোরান গত ১৪০০ বছরেরও পরিবর্তন হয় নাই। কোরানকে বিশ্বাস করছেন না কেন?

দুই নাস্তিক হা হা হা করে হেসে বলিল:
- নিমো হুজুর, আপনি ঠিক বলেছেন। বিজ্ঞানকে বিশ্বাস করা ঠিক না। আপনি কোরান-হাদিস ঠিক মতো ফলো করেন, আমরা আপনাকে সহায্য করব।

নাস্তিকদের কথা শুনে আমি খুশি হলাম। বাস থামলো। বাস থেমে নামতে গিয়ে বরফে পা পিছলে পড়ে গেলাম। জ্ঞান হারালাম আমি। দুই ঘন্টা পর হাসপাতালে চোখ খুলে দেখলাম, বাসের দুই নাস্তিকের এক নাস্তিক আমার দিকে তাকিয়ে আছে। 

নাস্তিক বলিল:
- হুজুর, আমি এই হাসপাতালের ডাক্তার। আপনার পায়ের একটা হাড় ভেঙে গেছে। কিন্তু আপনি তো মেডিক্যাল সায়েন্স বা বিজ্ঞানকে বিশ্বাস করেন না। তাই পরিবর্তনশীল বিজ্ঞানের তৈরি করা ঔষুধ দিয়ে চিকিৎসা করে আপনার ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিতে চাই না। আমি আপনাকে এখনই রিলিজ করে দিচ্ছি, আর এই নিন এখানকার একটি বাংলাদেশি মুদি দোকানের ঠিকানা।

আমার মেজাজ খারাপ হয়ে গেল। আমি বলিলাম:
- ওরে জাহান্নামি নাস্তিক, বাংলাদেশি মুদি দোকানের ঠিকানা দিয়ে আমি কী করিব?

নাস্তিক বলিল:
- ঐখান থেকে কালিজিরা কিনে নিবেন। ইসলাম অনুসারে সর্বরোগের মহাঔষধ।

নাস্তিক ডাক্তারের সাথে তর্ক করলাম না। খোঁড়াতে খোঁড়াতে হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে গেলাম। পা পিছলে পড়ে গিয়ে আমি আমার মোবাইল ফোনও হারিয়ে ফেলেছি। তাই কাছের একটা দোকানে মোবাইল মোবাইল ফোন কিনিতে গিলাম। দেখলাম দোকানে বাসের দ্বিতীয় নাস্তিক বসে আছে।

আমি নাস্তিককে বলিলাম:
- আমার ফোন হারিয়ে গেছে। আমাকে একটা আইফোন দিন।

নাস্তিক বলিল:
- হুজুর, অ্যাপল কোম্পানি ৬ মাস অন্তর অন্তর নতুন ফোন তৈরি করে। কারণ বিজ্ঞান পরিবর্তনশীল। অ্যাপল কোম্পানি এখন পর্যন্ত পারফেক্ট কোনো ফোন তৈরি করতে পারলো না। তাই বিজ্ঞানের উপর বিশ্বাস করে আইফোন কেনা কি ঠিক হবে? আমাদের নবীজি বার্তাবাহককে উট কিংবা গাধার পিঠে সওয়ার করিয়ে বার্তা পাঠাতেন। আপনি একটা উট কিংবা গাধা কিনে নিন।

নাস্তিকের কথা শুনে আমি চুপসাইয়া গেলাম। কালিজিরা আর উট ছাড়া আমার আর কোনো গতি নাই। খোঁড়াতে খোঁড়াতে আমি বাংলাদেশি মুদি দোকানের দিকে গেলাম।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন