২৯ মার্চ, ২০১৭

ইমানুলের ধর্মকথা - ৩

লিখেছেন ইমানুল হক

৫.
আল্লা আমাক ৪৫ বছরে অনেক কিছু দিয়েসে তার নিয়ামত ইসেবে। এই যেমুন, কয়ডা দিন দরি একডা মাইয়ারে বালা
লাইগদাছে। নাম অইলো মজ্জিনা। আমাগো গিরামেই থাহে। খুব বালা লাগে তারে, বয়স বেশি না। মাথ্র ৯ বছর। যহনি সামন দিয়া যায়, তাহাই থাইকতে মুন চায়। তাছাড়া যহন মনে অয়, নবিজির লগে দেহা অইলে সুন্নতি কামের জইন্য তিনি আমাক ক্যামনে জরাই দরে মুলাকাত কইরবে, তাই বেবে কুশিতে দুই চোক আমার বন্দ অই যায়। যাঅক, আবার গিরামে ইমানদার লুক ইসেবে বড়ই নাম ডাক। ফাচ অক্ত নামায পড়ি, ইডা আল্লার রঅমতে আমার সুনামডাও বাড়াইছে। বিয়ার চিন্তা ডুকি গেল মাতায়। কি করি? ঠিক কইল্ল্যাম, মিয়ার বাফের কাছ গটকডারে পাডাইতে অবি। মিয়ার বাপও আমার মতই একজন খাটি মুমিন বান্দা, দাড়ি-টুপি সব সুময়েই থাহে মাতায়। কফালে সুন্নতি দাগ বানাই পেইলছে ইতিমইদ্দে। আমার বয়সি লুক। বিবাহের ফ্রস্তাবডা দিলাম এলাকার হাপেজসাপ কুদ্রতালি হুজুরের মাইদ্দমে। কারণ হেয় আবার সুন্নতি বেফার-সেফার বালা বুজাইতে ফাইরবো মিয়ার বাপেরে। 

আমাগের নবীজি (সাঃ) ও ৫১ বছর বয়সে ৬ বছরের আয়শাক বিয়ে কইচ্ছিলেন। পরে ৯ বছরে গরে উটাই নেন, ছুবানাল্লা। [সুনান আবু দাউদ :: আদব ও শিষ্টাচার অধ্যায় ৪৩, হাদিস ৪৯৩৬ মূসা ইবন ইসমাঈল (র) .... আইশা (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ আমরা যখন মদীনায় আসি, তখন আমার কাছে কয়েকজন মহিলা আসে, আর সে সময় আমি দোলনায় দোল খাচ্ছিলাম। এ সময় আমার মাথার চুল ছোট ছিল। তারা আমাকে নিয়ে গিয়ে সুন্দর রুপে সুসজ্জিত করে রাসূলুল্লাহ (সা)-এর কাছে নিয়ে আসে। এ সময় তিনি আমার সাথে সহবাস করেন, আর তহন আমার বয়স আছিল নয় বছর।] তাছাড়া কুরানে আল্লাতালা গুসোনা দিয়া কইছেন যে, "বিবাহ কর নারীদের মইধ্য থিকা যাকে তোমাগের বালো লাগে, দুই, তিন বা চারটি। আর যদি আশঙ্কা থাহে যে (স্ত্রীদের মাঝে) সুবিচার কইত্তে ফাইরবা না, তাঅলে (মাত্র) একটি (বিবাহ কর)…." – সুরা নিসা ০৩:০৩। 

আরেক বিবিরে কাওয়ানের লাই যতেষ্ট টাহা আল্লায় আমারে দিছে ইনশাল্লায়া। যাঅক, কুদ্রতালি হুজুর দুইদিনেই মিয়ার বাপেরে পডাই পেইল্ল্যেন। আলামদুলিল্ল্যা। বাড়িতে দুই বিবিরেও জানানো ওইলো ফ্রস্তুতি নিতে নতুন বিবির জইন্য। এক নম্বর বিবি যেমুন তেমুন, দুই নম্বর বিবি আবার একটু অল্প সিক্কিত। সে রাগে ফায়ার অই গ্যাছে। সে আমারে কিচুতেই তিন নম্বর বিবাঅ কইত্তে দিবে না। সে আমাক বইল্য বিবাঅ কইত্তে অইলে তাগো পারমিসন লাইগবো। আমিও এদিকে নাচোরবান্দ্যা বিবাঅ করার জইন্য। 

আমাগো নবীজি ককনোই বিয়া কইত্তে কুন বিবির অনুমিত লয় নাই। আমি বুইজলাম [নারী শয়তানের রূপ (Sahih Muslim 8:3240)] তারে ফড়া ফানি কাওয়ান লাইগবো। যাইঅক, তারে এক গড়ে আপাতত তালা মারি রাকি বিয়ার প্রতম রাত্রি বাসর সাইরলাম। আলামদুলিল্লায়া!! আল্লা!

কি যে খুশি লাইগদেসে! ইসলামি, ইসলামি একডা শান্তির বাতাস ফাইচ্ছি অন্তেরের মইদ্দে। আল্লা তুমাক অশেষ ধইন্ন্যবাদ নবীর আদশ্য অক্করে অক্করে ফালনে আরো একদাপ আগাইয়া দেওয়ার লাই। পৃতিবিতে যতদিন বাইচবো, মুসলিম অয়েই বাচবো। আল্লা আমাক আরো বালো তাকার তওপিক দেও। আমিন।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন