২১ মার্চ, ২০১৭

নিমো হুজুরের খুতবা - ৩৪

লিখেছেন নীল নিমো

আজকে সকালবেলা এক নাস্তিককে মুসলমান বানাতে গিয়ে আমিই নাস্তানাবুদ হয়ে গেলাম। ঘটনাটি নিম্নরূপ:

গতকাল রাত্রে এক নাস্তিককে বলেছিলাম:
- ইসলাম খুবই সহজ ধর্ম। শুধুমাত্র পরিপূর্ণ জীবনবিধান পবিত্র কোরান মজিদকে মেনে নিলেই হবে। সে মুসলনমান হয়ে যাবে। হিন্দু, খ্রিষ্টান, ইহুদি ধর্মের মত ইসলাম ধর্ম জটিল ধর্ম নয়। ইসলাম ধর্মকে আল্লাহপাক মানুষের জন্য সহজ করে দিয়েছেন।

আলহামদুল্লিলাহ, আমার কথা শুনে, নাস্তিক ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করতে রাজি হয়ে গেল। ঠিক হলো, আজকে সকালবেলা নাস্তিক আমার কাছে এসে কালিমা পড়ে মুসলমান হয়ে যাবে।

তো, আজকে সকালবেলা নাস্তিক আমার কাছে এলে আমি নাস্তিককে কালিমা তৈয়েবা পড়িতে বলিলাম:
- লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ।

নাস্তিক বলিল:
- হুজুর, আমি কোরানের আয়াত ছাড়া কোনোকিছুই পড়িব না। কালিমা তৈয়েবা কোরান শরিফে নাই।

আমি বলিলাম:
- হাদিসে আছে। পড়ে ফেলুন।

নাস্তিক বলিল:
- নবীজির মৃত্যুর ২০০ বছর পর হাদিস রচনা করা হয়েছিল। হাদিস আসমানি কিতাব নহে। উজবিকাস্তানে জন্ম নেওয়া তুর্কি ইমাম বুখারী, সহি হাদিস সংকলন করেছিলেন ৮৪০ সালে। শিয়া, সুন্নি, আহমেদিয়া, সুফিরা সহি হাদিস নিয়া দ্বিমত প্রকাশ করেছে। এমনকি অনেক সুন্নিও দাবি করে যে, তাওহীদ এবং রিসালত এক সাথে কোনো হাদিসে আসে নাই। তাই বিতর্কিত হাদিস পড়ে আমি মুসলমান হতে চাই না। আপনি বলেছিলেন, আসমানি কিতাব কোরান মানলেই হবে। মুসলমান হতে হলে বিতর্কিত হাদিস পড়তে হবে, এটা আপনি তো আগে বলেন নাই।

নাস্তিকের কথা শুনে আমি তব্দা হয়ে গেলাম। আমার নিজের ঈমানের ভিত্তি লইয়া নাস্তিক টান মারল। আমার মাথাটা ঘুরে উঠলো। আমার দুরবস্থা দেখে নাস্তিক তাড়তাড়ি ১১২-তে ফোন করল।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন